যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের উপর হামলার বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

পিবিএ,যবিপ্রবি: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও দেশরত্ন শেখ হাসিনার ছবি বিকৃতিকারী উপাচার্যের অনতিবিলম্বে পদত্যাগ সহ নয় দফা দাবিতে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে ১৯ জানুয়ারী রাত ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাদদেশে আমরণ অনশন কর্মসূচি পালনকালে বিশ্বদ্যিালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী অতর্কিত হামলা চালানোর অভিযোগে আজ ২০ ফেব্রুয়ারী যশোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভুগি শিক্ষার্থীর্।

সংবাদ সম্মেলনে তারা জানান, শিক্ষক নিয়োগে বাধা প্রদান, উপাচার্যের কার্যালয়ে হামলা, শৃঙ্খলা ভঙ্গ, অসাদাচরণ ও র‌্যাগিংয়ে জড়িত থাকার অভিযোগে গত ১৮ ফেব্রুয়ারী তাদের দুই শিক্ষার্থীকে আজীবন ও চার শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তি দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তারই প্রতিবাদে সকাল থেকেই শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালন করে আসছিলেন।

কিন্তু দুপুর পর থেকেই তাদেরকে আন্দোলন তুলে নিতে বিভিন্নভাবে হুমকি দেয়া শুরু হয়। আর রাতে কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই বহিরাগত আজিজুল ইসলাম ও রাসেল পারভেজ আর বিশ্ববিদ্যাল ছাত্রলীগের কামরুল হাসান শিহাব, ইব্রাহিম, বিপুল, ইমনসহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী বিদ্যুৎ সংযোগবন্ধ করে অতর্কিত হামলা চালান। এসময় হামলাকারীরা ক্রিকেট স্ট্যাম্প দিয়ে আরাফাত সুজন, মাহমুদুল হাসান সাকিব, মনিরুল ইসলাম হৃদয় সহ ১২ জনকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পালনকালে অস্তর দে শুভ জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও দেশরত্ন শেখ হাসিনার ছবি বিকৃতির মত ঘটনা ঘটছে বিশ্ববিদ্যালয়ে যা ইতমধ্যে আদালতে প্রমাণিত হয়েছে। আদালতে যারা রাষ্ট্রদ্রোহী বলে চিহ্নিত হয়েছে তাদেও এ মামলার ব্যয় বিশ্ববিদ্যালয় বহন করতে পারে না এ মর্মে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীসহ বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেছি, এজন্য বোধহয় আমাদেরকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

পিবিএ/বিএইচ

আরও পড়ুন...