আমাদেরকে কেন এত কষ্ট দেয়া হচ্ছে?

পিবিএ,ঢাকা: রাজধানীর কারওয়ান বাজারের পাঁচ তারকা হোটেল সোনারগাঁওয়ের গেটের বাইরে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে অপেক্ষা করছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের বাসিন্দা সৌদিপ্রবাসী শ্রমিক জুঁই আক্তার। জীবিকার সন্ধানে মাসিক ৭০০ রিয়াল বেতনে দু’বছর আগে সৌদি আরব যান। নিয়মিত বেতনও পেতেন। লকডাউন শুরু হওয়ার আগে ছুটিতে দেশে ফেরেন। কোম্পানির পক্ষ থেকে আপডাউন টিকিট কেটে দেয়া হয়। পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ছুটি কাটিয়ে মার্চ মাসে সৌদি আরব ফিরে যাওয়ার কথা থাকলেও লকডাউনের কারণে যেতে পারেননি।

ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে জুঁই আক্তারের। টিকিট কনফার্ম করার জন্য আজ সকালেই সোনারগাঁও হোটেলে সৌদি এয়ারলাইন্সের কাউন্টারে আসেন। কিন্তু আড়াই ঘণ্টা অপেক্ষার পরও ভেতরে প্রবেশ করতে পারেননি। টিকিট কীভাবে পাবেন সে ব্যাপারেও তিনি কিছু জানতে পারেননি। তার অভিযোগ, তার পরে দেশে ফিরে পরিচিত একজন এজেন্সির কাজ থেকে বেশি টাকায় টিকিট কিনে দুদিন আগে সৌদি ফিরে গেছেন।

জুঁই আক্তার বলেন, অনেক কষ্ট করে ভালো একটা চাকরি নিয়ে সৌদি আরব গিয়েছিলাম। বেতন-ভাতাও ভালো ছিল। কিন্তু এখন ভিসা টিকিটের ব্যবস্থা কীভাবে হবে, কেউ তা বলছে না। আক্ষেপের সুরে তিনি বলেন, সারা দিনরাত গাধার মতো পরিশ্রম করে টাকা রোজগার করে দেশে পাঠাই। আমাদেরকে কেন এত কষ্ট দেয়া হচ্ছে।

শুধু জুঁই আক্তার একা নয়, তার মতো কয়েকশো প্রবাসী শ্রমিক গত কয়েকদিনের মতো আজও সোনারগাঁ হোটেলের সামনে ভিড় জমিয়েছেন। কেউ কেউ সৌদি এয়ারলাইন্সের দেয়া টোকেন নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। কিন্তু ভেতরে প্রবেশের অনুমতি পাচ্ছেন না।

প্রবাসী শ্রমিকের অভিযোগ, বিভিন্ন এজেন্সির মাধ্যমে মোটা অঙ্কের টাকায় সৌদি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ টিকিট বিক্রি করে দিচ্ছে। তারা বলেন, সৌদি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ এ পর্যন্ত দুই হাজার প্রবাসী শ্রমিককে এয়ারলাইন্সের টিকিট ইস্যু করার জন্য বিশেষ টোকেন দিয়েছেন। কিন্তু তারা সেই টোকেনের সিরিয়াল অনুযায়ী টিকিট দিচ্ছেন না।

৬৩১ নম্বর সিরিয়ালের টোকেন হাতে নিয়ে সেখানে দাঁড়িয়ে ছিলেন এক প্রবাসী। তিনি জানান, গত ২-৩ দিনে কয়েকশো প্রবাসী সৌদি আরব ফিরে গেছেন। তাদের সিরিয়াল অনুযায়ী টিকিট দেয়া হলে তার টিকিট ইস্যু করার কথা। কিন্তু তিনি এখন পর্যন্ত ভেতরে প্রবেশ করার সুযোগই পাননি।

প্রবাসী শ্রমিকদের অভিযোগ, বিভিন্ন এজেন্সি সৌদি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগসাজশ করে দ্বিগুণ মূল্যে টিকিট বিক্রি করছে।

তারা বলছেন, টিকিটের ব্যাপারে সৌদি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষের সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা প্রদান করা উচিত। তারা কীভাবে দিনে কতজনকে টিকিট বরাদ্দ করবে, সিরিয়াল মানা হবে কি-না, তা জানিয়ে দেয়া উচিত। তাহলে আর ভিড় হবে না।

যাদের ভিসা ও এবং বিমানের টিকিটের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, তারা কীভাবে সৌদি ফিরে যাবেন, সে ব্যাপারে সরকারের সহায়তা কামনা করেছেন প্রবাসী শ্রমিকরা।

পিবিএ/এমআর

আরও পড়ুন...