ইউনিয়ন আ’লীগের সম্মেলনকে ঘিরে কালিহাতীতে উত্তেজনা

মনির হোসেন, টাঙ্গাইল: টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার সল্লা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনকে ঘিরে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করছে।
তারই ধারাবাহিকতায় ২০ মার্চ সন্ধ্যায় চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সাহানুজ্জামান তালুকদার রঞ্জু এবং সম্মেলনে সভাপতি পদপ্রার্থী কেরামত তালুকদারের কর্মী- সমর্থকদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় অন্তত ১০-১২ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে পারভেজ আহাম্মেদ ফরিদ (৪২) কে সিরাজগঞ্জ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে দেউপুর গ্রামের ফরিদুল ইসলাম জানান, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সম্মেলন কে ঘিরে চেয়ারম্যান প্রার্থী সাহানুজ্জামান তালুকদার রঞ্জু এবং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি প্রার্থী কেরামত তালুকদার এবং সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী জাহাঙ্গীর ভাই ২০ মার্চ সন্ধ্যায় পূর্ব নির্ধারিত দেউপুর পুরাতন বাজারে একটি মতবিনিময় সভায় যোগদান করবে বলে সাউন্ড বক্স নিয়ে সবকিছু ঠিকঠাক করাকালীন সময়ে দুপুর ৩ টার দিকে আলীম চেয়ারম্যানের লোকজন ওই জায়গায় গিয়ে গান বাজানো শুরু করে। একপর্যায়ে কালিহাতী থানা পুলিশ গিয়ে তাদেরকে দেড় ঘণ্টা সময় নির্ধারণ করে দেয়। তারপর আমাদের কার্যক্রম শুরু করতে বলে। কিন্তু ঐ দেড়ঘন্টা পার হলেও তারা গান বাজানো বন্ধ না করায় পুলিশ প্রশাসন আমাদের অনুষ্ঠান শুরু করতে বললে আমরা রঞ্জু ভাই, কেরামত ভাই ও জাহাঙ্গীর ভাইকে আনার জন্য সল্লা যাই। পরে সেখান থেকে আসার সময় দেউপুর ফটিক মন্ডলের মোড় পর্যন্ত আসলে বর্তমান সভাপতি ও সল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল আলীমের জনপ্রিয়তা শূন্যের কোঠায় নেমে আসায় তার লোকজন লাঠি-সোঠা নিয়ে আমাদের ওপর হামলা চালায়।

জানাগেছে, সল্লা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের জন্য আগামি ৩০ মার্চ তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। সম্মেলনকে সামনে রেখে সভাপতি পদে বর্তমান সভাপতি আব্দুল আলীম ও বর্তমান সাধারণ সম্পাদক কেরামত আলী তালুকদার প্রার্থী হয়েছেন। সেলক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা ইউনিয়নের কাউন্সিলর ও ডেলিগেটদের মন জয় করতে উঠে-পড়ে লেগেছেন, দিনরাত গণসংযোগ ও মিছিল-শোডাউন করছেন। এরই অংশ হিসেবে শনিবার (২০ মার্চ) বিকালে দেউপুর পুরাতন বাজারে কেরামত আলী তালুকদারের পক্ষে মতবিনিময় সভার আহ্বান করা হয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে একই স্থানে একই সময়ে অপর প্রার্থী আব্দুল আলীমের পক্ষেও সমাবেশ ডাকা হয়।

উভয় গ্রুপ একই স্থান ও সময়ে সমাবেশ আহ্বান করায় এলাকায় উত্তেজনা দেখা দেয়। ওইদিন সন্ধ্যায় কেরামত আলী তালুকদার ও চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি সাহানুজ্জামান তালুকদার রঞ্জুর নেতৃত্বে একটি মোটরসাইকেল শোডাউন দেউপুর পুরাতন বাজারের দিকে যাওয়ার পথে ফটিক মন্ডলের মোড়ে পৌঁছলে সেখানে অবস্থানরত আব্দুল আলীমের কর্মী-সমর্থকরা শোডাউনে অতর্কিত হামলা চালায়। হামলায় কেরামত আলী তালুকদারের কর্মী পারভেজ আহাম্মেদ ফরিদ, লাভলু মিয়া, রুহুল আমিন তালুকদারসহ ১০-১২জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে পারভেজ আহাম্মেদ ফরিদ, লাভলু মিয়া, রুহুল আমিন তালুকদারকে কালিহাতী উপজেলা স্বাস্ব্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অন্যরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নেয়। আহতদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় পারভেজ আহাম্মেদ ফরিদকে সিরাজগঞ্জ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি সাহানুজ্জামান তালুকদার রঞ্জু জানান, শনিবার বিকেলে পূর্ব নির্ধারিত মতবিনিময় সভায় যোগদান করার লক্ষ্যে তারা সন্ধ্যায় একটি মোটরসাইকেল শোডাউন নিয়ে সল্লা থেকে দেউপুর পুরাতন বাজারের দিকে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে দেউপুর ফটিক মন্ডলের মোড়ে পৌঁছলে সেখানে অবস্থানরত আব্দুল আলীমের কর্মী-সমর্থকরা তাদের উপর দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে হামলা করে ৭-৮টি মোটরসাইকেল ভাংচুর করে এবং পারভেজ আহাম্মেদ ফরিদ, লাভলু মিয়া ও রুহুল আমিন তালুকদারসহ ১০-১২জন লোককে মেরে আহত করে। এদের মধ্যে পারভেজ আহাম্মেদ ফরিদকে কালিহাতী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ২১ মার্চ দুপুরে সিরাজগঞ্জ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। পরে ঘটনার দিন রাতেই ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে কালিহাতী থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এ বিষয়ে সল্লা ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি প্রার্থী কেরামত আলী তালুকদার জানান, রাজনীতিতে প্রতিযোগিতা থাকবেই। তাই বলে প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে হামলা চালানো মধ্যযুগীয় বর্বরতার সামিল। তিনি ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান ও দোষীদের শাস্তি দাবি করেন।

অপর সভাপতি প্রার্থী ও সল্লা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আলীমের নিকট মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে তিনি বলেন, আমি ঢাকা বারডেম হাসপাতালে আছি, পরে কথা বলব।

কালিহাতী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সওগাতুল আলম জানান, ওই ঘটনায় একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত চলছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রকাশ, একই সম্মেলনকে কেন্দ্র করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকীতে দুই গ্রুপ পৃথকভাবে কেক কেটে জন্মদিন উদযাপন করেন। ওইদিনও বর্তমান সাধারণ সম্পাদক কেরামত আলী তালুকদারকে নাজেহাল ও একটি অটোরিকশা ভাংচুর করা হয়।

পিবিএ/এমএসএম

আরও পড়ুন...