কমলগঞ্জের মাধবপুরে গরিবের ভিজিএফ চাল গেলো বিত্তবানদের ঘরে

দরিদ্র অসহায় মানুষের ভিজিএফ চাল বিত্তবানদের প্রদান করার অভিযোগ। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নে বেশ কয়েকটি গ্রামে অসহায় দরিদ্র মানুষদের বাদ দিয়ে বিত্তবানদের ভিজিএফ চাল দেওয়ার গুঞ্জন উঠেছে। সরেজমিন গিয়ে অনুসন্ধান করে জানা যায় ৮ নং ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের মাধবপুর সড়ক লাইনের ব্যবসায়ী মৃত: শরীফ মিয়ার ছেলে জুনাব মিয়া,৷ বিত্তবান সিদ্দেক আলী এবং ৪ নং লাইনের পদ্মছড়া এলাকার আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী মৃত- তঞ্জব মিয়ার ছেলে আসিক মিয়ার পাকা বাড়ি, মোটরবাইক থাকার পরও সরকার কর্তৃক অসহায় দরিদ্র মানুষের বরাদ্দকৃত ভিজিএফ এর চাল প্রদান করা হয়।

আর্থিকভাবে সচ্ছল এসব বিত্তবানদের ভিজিএফ চাল প্রদান করলেও বাদ পড়েছেন অসহায় অতিদরিদ্র মরালি ভর, মোবারক মিয়া, আমেনা বেগম। ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ২৩ বছরের মেয়ে ফাতেমাকে নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন বিধবা আমেনা বেগম। আমেনা বেগম অভিযোগ করে বলেন আমার কিশোর ছেলে দিনমজুর করে কোন রকম সংসার পরিচালনা করছিলো কিন্তু সংক্রমণ করোনা ভাইরাসের কারণে উনার ১৬ বছরের ছেলে কর্মহীন হয়ে পরে,আশায় ছিলেন আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে ইউনিয়ন থেকে চাল পাবেন, কিন্তু রহস্যজনক ভাবে ভিজিএফ চালে তার নাম আসেনি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্হানীয় কয়েকজনের সাথে আলাপকালে জানা যায় চেয়ারম্যান ও মেম্বারের কিছু পছন্দের মানুষ রয়েছেন, এরা আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হলেও ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বিশেষ সুবিধা দেওয়া হয়,বিনিময়ে চেয়ারম্যান, মেম্বার নির্বাচনে এসব সুবিধাভোগীদের ব্যবহার করেন।

এ বিষয়ে মাধবপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য কৃষ্ণলাল দেশওয়ারা জানান তিনি মোট ৭০ টি নাম পেয়েছেন,আসন্ন পবিত্র ঈদ উপলক্ষে শুধু মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে ৩৫ টি পদ্মছড়া, ও ৩৫ টি মাধবপুর বাগান এলাকার বিতরণ করেন, তবে দরিদ্র রেখে বিত্তবানদের দেওয়ার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করলেও বাস্তব চিত্র তার ভিন্ন,অনেক দরিদ্রদের বাদ দিয়ে বিত্তবানদের ভিজিএফ চাল বিতরণ করার সত্যতা পাওয়া গেছে। আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী বিত্তবানদের ভিজিএফ চাল দেওয়ার তথ্য চাইলে ৮নং মাধবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পুষ্প কুমার কানু জানান ভিজিএফ এর তথ্য নিতে চাইলে, তথ্য অধিকার আইনে নিতে হবে অন্যতায় দেওয়া হবে না। এ বিষয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক জানান ভিজিএফ এর তালিকা পৃর্বে থেকে করা থাকে, বিত্তবানদের নাম থাকার কথা নয়, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ভিজিএফ এর তালিকা পাওয়ার পর বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে। তিনি আরোও জানান যারা বিভিন্ন ভাতা পেয়ে থাকেন তাদেরকে ভিজিএফ চাল না দেওয়ার জন্য বলা হয়,তবে যাদের আর্থিক অবস্থা খারাপ উনারা ভাতা পেলেও ভিজিএফ দেওয়া হয়। কিন্তু মাধবপুর ইউনিয়নে হয়েছে তার ব্যতিক্রম ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত দৃষ্টি প্রতিবন্ধী আমেনা বেগমকে বাদ দিয়ে স্বাবলম্বীদের ভিজিএফ চাল প্রদান করা হয়।

 পিবিএ/মোঃ আহাদ মিয়া/এমএসএম

আরও পড়ুন...