কীভাবে বুঝবেন শরীরে ভিটামিনের অভাব হয়েছে

পিবিএ ডেস্কঃ শরীরকে সুস্থ রাখতে নানা ধরনের ভিটামিন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আপনি কেমন থাকবেন, তা অনেকাংশে এই সমস্ত ভিটামিনের শরীরে উপস্থিতি ও অনুপস্থিতির উপরে নির্ভর করে। আর সেই কারণেই নিজের ডায়েটে নানা ধরনের ফল, শাক-সবজি রাখা প্রয়োজন। শরীর ঠিক রাখতে প্রসেসড খাবারের দিকে ঝোঁকা একেবারেই উচিত নয়। তবে সবকিছু আপাতদৃষ্টিতে ঠিক রয়েছে মনে হলেও অনেক সময়ই শরীরে নানা লক্ষণ ফুটে ওঠে যা গোলমালের ইঙ্গিত দেয়। কিন্তু তা বুঝতে না পারার কারণে অনেক সময় সেগুলির মোকাবিলা আমরা করে উঠতে পারি না। শরীরে ভিটামিনের অভাব হলেও একইরকমভাবে নানা লক্ষণ ফুটে ওঠে। ঠিক কীভাবে বুঝবেন শরীরে ভিটামিনের অভাব হয়েছে কিনা তা জেনে নিন নিচের স্লাইড থেকে।

ঠোঁট ফাটাঃ শরীরে ভিটামিন বি, জিঙ্ক, আয়রনের খামতি হলে ঠোঁটের কোণ বা মাঝের অংশ ফেটে যায়। এর থেকে বাঁচতে ডিম, মাছ, বাদাম, বাধাকপি, ব্রকোলি ইত্যাদি নিজের ডায়েট চার্টে রাখুন।

চুল পড়াঃ ভিটামিন এ, কে, ই, ডি, বি৭-র অভাব হলে চুল পড়তে পারে। শুকনো ফল, আভোকাডো, কলা, মাশরুম, দানাশস্য নিজের ডায়েটে রাখুন।

মুখে, গায়ে দাগ-ছোপঃ ভিটামিন ডি ও এ-র ঘাটতি হলে এমন হতে পারে। ট্রান্স ফ্যাট ও স্যাচুরেটেড ফ্যাট রয়েছে, এমন খাবার কম খান। বদলে নানা ধরনের ফল, আখরোট, অ্যামন্ড ডায়েটে রাখুন।

সারা গায়ে চুলকানিঃ অনেকেরই সারা গায়ে লাল ছোপ হয়ে চুলকাতে থাকে। ভিটামিন বি, বি১২, বি৯ ও বি৬-এর অভাবে এমন হতে পারে। বেশি করে সামুদ্রিক মাছ, ডিম, সবুজ শাক-সবজি নিজের ডায়েটে রাখুন।

টান লাগাঃ ভিটামিন বি-এর ঘাটতি ও ম্যাগনেশিয়াম, ক্যালশিয়াম ও পটাশিয়ামের খামতি শরীরে থাকলে হাতে-পায়ে টান লাগতে পারে। অ্যামন্ড, কলা, পালং শাক, বাধাকপি, আপেল, কুমড়ো ডায়েট চার্টে রাখলে এর থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

ক্লান্তিঃ ভিটামিন বি এর অভাবে ক্লান্তি, অনিদ্রা, অবসাদ, হজমে গোলমাল, ওজন কমে যাওয়া ইত্যাদি হতে পারে।

মাড়ি থেকে রক্ত ঝরাঃ মাড়ি থেকে রক্ত ঝরা, হজমের গোলমাল, নাক দিয়ে রক্ত পড়া, ঘা শুকোতে না চাওয়া, গাঁটে ব্যথা ইত্যাদির কারণ ভিটামিন সি-র ঘাটতি।

পিবিএ/এমআর

আরও পড়ুন...

ঘরে বসেই নিজের বিকাশ একাউন্ট খুলুন