ক্লাসরুমে সন্তানদের কার্যকলাপ বাড়িতে বসেই দেখতে পারবেন অভিভাবকরা!

পিবিএ ডেস্ক: ভারতে নারীদের পাশাপাশি শিশুদের উপর যৌন নির্যাতন এত বেড়ে গেছে যে, চোখর আড়াল হলেই তাদের নিয়ে চিন্তায় থাকেন অভিভাবকরা।কখনও যৌন হেনস্তার মুখে পড়তে হচ্ছে, আবার কখনও স্কুলেই আত্মঘাতী হচ্ছে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা৷ তাই সন্তানকে স্কুল পাঠিয়ে এখন আর নিশ্চিন্ত হতে পারেন না অভিভাবকরা। বরং উদ্বেগ আরও বাড়ছে। তাদের দুশ্চিন্তা দূর করতে এবার এক অভিনব উদ্দোগ নিয়েছে দিল্লির কেজরিওয়াল সরকার।ক্লাসরুমে মধ্যে নিজের ছেলে মেয়েরা কি করছে‌, তা এবার বাড়িতে বসে বসেই দেখতে পারবেন অভিভাবকরা।

মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের দাবি, দেশে তো বটেই, বিশ্বের কোনও স্কুলে এমন ব্যবস্থা নেই। শুধু তাই নয়, এ বছরের নভেম্বরের মধ্যে রাজধানীতে সমস্ত সরকারি স্কুলের ক্লাসরুমে সিসিটিভি বসানো হবে বলে জানিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী।

বছর দুয়েক আগে নয়ডার রায়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের শৌচাগার থেকে উদ্ধার হয়েছিল দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রের রক্তাক্ত দেহ। ঘটনায় শোরগোল পড়েছিল গোটা ভারতে। খুনের অভিযোগে ওই স্কুলের একাদশ শ্রেণির এক ছাত্রকে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। পরবর্তীকালেও দিল্লি-সহ বিভিন্ন শহরের একাধিক স্কুলের শিক্ষার্থীদের যৌন হেনস্তা, এমনকী অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে। বস্তুত, দিন কয়েক আগে কলকাতার জি ডি বিড়লা স্কুলের শৌচাগারে আত্মহত্যা করে দশম শ্রেণির ছাত্রী কৃত্তিকা পাল। ফলে এখন স্কুল শিক্ষার্থীরা কতটা নিরাপদ, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

শুধু সরকারি স্কুল চত্বরেই নয়, দিল্লিতে প্রতিটি সরকারি স্কুলের ক্লাসরুমেও সিসিটিভি বসানোর উদ্যোগ নিয়েছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সরকার। শহরের লাজপত নগরের একটি সরকারি স্কুলে প্রকল্পটির উদ্বোধন করেছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। তাঁর দাবি, স্রেফ ক্লাসরুমে সিসিটিভি বসানোই নয়, একটি স্কুলে অভিভাবকদের লাইভ ফুটেজ দেখানোরও ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ অরবিন্দ কেজরিওয়াল বলেন, ‘স্কুলে পড়ুয়ারা কী করছে, তা অভিভাবকদের জানাতে সরকার দায়বদ্ধ। যদি ক্লাসরুমে অনভিপ্রেত কোনও ঘটনা ঘটে কিংবা সিসিটিভি ক্যামেরার কোনও ক্ষতি হয়, সেক্ষেত্রে সরকারকেই জবাবদিহি করতে হবে।’ সরকারের সিদ্ধান্তে অভিভাবকরা উপকৃত হবেন বলেই আশাপ্রকাশ করেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

পিবিএ/এএইচ


আরও পড়ুন...

ঘরে বসেই নিজের বিকাশ একাউন্ট খুলুন