গৌরনদীতে ৪র্থ শ্রেনীর শিশু স্কুলছাত্রী ধর্ষিতা,ধর্ষক আটক

পিবিএ,গৌরনদী: বরিশালের গৌরনদী উপজেলার হোসনাবাদ বাজারের হারুন খলিফা (৪৫) নামের এক লম্পট ব্যবসায়ী কর্তৃক বুধবার বিকেলে ৪র্থ শ্রেনীর এক শিশু স্কুলছাত্রী (১০) ধর্ষিতা হয়েছে। পুলিশ ওইদিন রাতে ঘটনাস্থল থেকে ধর্ষিতাকে উদ্ধার ও ধর্ষক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে। ধর্ষিতা শিশু তার পরিবার, পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানাগেছে, ধর্ষিতা ওই শিশুটি গৌরনদী উপজেলার মিয়ারচর চৌধুরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেনীর ছাত্রী। তাদের বাড়ি পার্শ্ববর্তি কোটালীপাড়া উপজেলায়।

দারিদ্রতার কারনে তার পরিবার কয়েক বছর পূর্বে নিজেদের এলাকা ছেড়ে গৌরনদী উপজেলা হোসনাবাদ এলাকায় এসে আশ্রয় নেয়। শিশুটির বাবা এলাকায় দিন মজুরী করত, আর তার মা ওই বাজারে ঝাড়ুদারের কাজ করত। এ সুবাদে শিশুটিকে নিয়ে তার পরিবার ওই বাজার সংলগ্ন একটি বাসায় ভাড়ায় থাকত। বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে তাদের বাসা সংলগ্ন লেপ-তোষকের দোকানদার ব্যবসায়ী হারুন খলিফা (৪৫) শিশুটিকে একটি প্লাস (লোহার হাতিয়ার) এগিয়ে দেয়ার নামকরে তার দোকানের পেছনে ডেকে নিয়ে মুখ চেঁপে ধরে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে।

ঘটনার পর বাসায় ফিরে শিশুটি তার মাকে এ ঘটনা জানায়। তার মা তখন তাৎক্ষনিক স্থানীয় ইউপি সদস্যের কাছে গিয়ে এ ঘটনা জানালে তিনি পুলিশকে থানা খবর দেন। খবর পেয়ে গৌরনদী মডেল থানা পুলিশ ওইদিন রাত ৯টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌছে ধর্ষক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার ও ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। গ্রেফতার হওয়া ধর্ষক লেপ-তোষক ব্যবসায়ী হারুন খলিফার বাড়ি উপজেলার চাঁদশী গ্রামে সে ওই গ্রামের শুক্কুর আলী খলিফার ছেলে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে গৌরনদী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ মাহাবুরুর রহমান জানান, এ ঘটনায় ধর্ষিতা শিশু স্কুল ছাত্রীর মা মেহেরুন বেগম বাদি হয়ে ওই রাতেই থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ধর্ষিতাকে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ধর্ষককে বরিশাল আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

পিবিএ/খোন্দকার মনিরুজ্জামান মনির/বিএইচ

আরও পড়ুন...