চারঘন্টা যাবত ঢাকা মহাসড়ক বন্ধ: পালিয়েছে বিআরটি কর্মকর্তারা

রাজধানীর উত্তরায় নির্মাণাধীন বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পের গার্ডার ক্রেন থেকে ছিটকে পড়ে প্রাইভেটকারে থাকা চার যাত্রী নিহত হয়েছেন। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত দুপুর সাড়ে ৩টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত যানচলাচল বন্ধ রয়েছে। দুর্ঘটনার পরপরই সড়কটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এর প্রভাব পড়েছে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ প্রায় সব সড়কে। এতে সন্ধ্যার আগে থেকেই রাজধানীজুড়ে দেখা দিয়েছে তীব্র যানজট।

সরেজমিনে সোমবার (১৫ আগস্ট) সন্ধ্যায় রাজধানীর মহাখালী, বাডডা, বনানী, বিমানবন্দর ও উত্তরা এলাকায় দেখা গেছে, প্রতিটি সড়কে গাড়ি চলছে ধীরগতিতে। উত্তরার যানজট ঘণ্টাখানেকের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে পুরো রাজধানীতে।

এদিন বিমানবন্দরগামী যাত্রীদের সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়তে দেখা গেছে। অনেকে দীর্ঘক্ষণ বাস, সিএনজিচালিত অটোরিকশা বা মোটরসাইকেলে বসে থেকে বাধ্য হয়েই বিমানবন্দরের দিকে হাঁটা শুরু করেন।

ট্রাফিক উত্তরা বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) বদরুল আহসান বলেন, উত্তরা জসীম উদদীন এলাকার আড়ংয়ের সামনে নির্মাণাধীন বিআরটি প্রকল্পের গার্ডার ক্রেন থেকে ছিটকে পড়ে প্রাইভেটকারে থাকা ছয় যাত্রীর চারজন নিহত হয়েছেন। নিহতদের এখনো উদ্ধার করা যায়নি। উদ্ধারকাজ চলছে। এ কারণে সড়ক বন্ধ থাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন- রুবেল (৫০), ঝরণা (২৮), জান্নাত (৬) ও জাকারিয়া (২)। হতাহতরা সবাই একই পরিবারের সদস্য বলে জানা গেছে।

এদিকে উত্তরায় যান চলাচল কিছুটা স্বাভাবিক রাখতে এবং দুর্ঘটনাকবলিত প্রাইভেটকারটি সরিয়ে নিতে ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যদের তৎপরতা চোখে পড়েছে।

আরও পড়ুন...