চীনের বিরুদ্ধে ‘ডিজিটাল স্ট্রাইক’ ঘোষণা ভারতের


পিবিএ, আর্ন্তজাতিক ডেস্ক : ভারত – চীন লাদাখ সীমান্ত্র সংঘর্ষ এবার প্রকাশ্য প্রযুক্তিগত যুদ্ধে রুপ নিলো। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ‘সার্জিকাল স্ট্রাইকের’ মত চীনের বিরুদ্ধে ‘ডিজিটার স্ট্রাইক’ ঘোষণা করেছে ভারত।

সোমবার থেকে চীনের ডিজিটাল অ্যাপ টিকটক, ইউসি ব্রাউজার, শেয়ার-ইট, উই-চ্যাট, ক্যামস্ক্যানারসহ ৫৯টি মোবাইল অ্যাপ নিষিদ্ধ করল ভারত সরকার। জানিয়েছে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা। ভারত সরকারিভাবে নিষিদ্ধ ঘোষিত অ্যাপগুলোর একটি তালিকাও প্রকাশ করেছে।
তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ গণমাধ্যমে বলেছেন, ভারতের সুরক্ষা, সংহতি, নিরাপত্তা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা এবং এ দেশের সাধারণ মানুষের তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতেই আইনের ৬৯ক ধারায় এই সিদ্ধান্ত।

লাদাখ সীমান্তে চিন-ভারত সংঘাতের আবহে এই ঘোষণা স্বাভাবিক ভাবেই তাৎপর্যপূর্ণ। বিশেষত যেখানে নিষেধের তালিকায় বহুল পরিচিত চিনা অ্যাপের ছড়াছড়ি এবং শুধুমাত্র দেশীয় পণ্য কেনার কথা নিয়ম করে বলছেন খোদ প্রধানমন্ত্রী।

নিষিদ্ধ চিনা অ্যাপগুলো হলো – টিকটক, শেয়ারইট, ইউসি ব্রাউজার, কোয়াই, বাইডু ম্যাপ, শাইন, ক্ল্যাশ অব কিঙ্গস, ডিইউ ব্যাটারি সেভার, ডিইউ রেকর্ডার, ডিইউ ক্লিনার, ডিইউ ব্রাউজার, হেলো, লাইকি, ইউক্যাম মেকআপ, মি কমিউনিটি, মি ভিডিয়োকল, সিএম ব্রাউজার্স, ভাইরাস ক্লিনার, এপিইউএস ব্রাউজার, রমউই, ক্লাব ফ্যাক্টরি, নিউজডগ, উইচ্যাট, বিউটি প্লাস, উইসিঙ্ক, ইউসি নিউজ, কিউকিউ মেল, কিউকিউ মিউজিক, কিউকিউ নিউজফিড, ওয়াইবো, জেন্ডার, বিগো লাইভ, সেলফিসিটি, মেল মাস্টার, প্যারালেল স্পেস, ইএস ফাইল এক্সপ্লোরার, ভিভা ভিডিয়ো-কিউইউ ভিডিয়ো আইএনসি, কিউকিউ প্লেয়ার, ভিগো ভিডিয়ো, নিউ ভিডিয়ো স্টেটাস, ভল্ট-হাইড, ক্যাশ ক্লিনার-ডিইউ অ্যাপ স্টুডিয়ো, ক্যামস্ক্যানার, ক্লিনমাস্টার-চিতা মোবাইল, ওয়ান্ডার ক্যামেরা, ফোটো ওয়ান্ডার, উইমিট, সুইট সেলফি, হাগো প্লে উইথ নিউ ফ্রেন্ডস বাইডু ট্রান্সলেট, ভিমেট, কিউকিউ ইন্টারন্যাশনাল, কিউকিউ সিকিউরিটি সেন্টার, কিউকিউ লঞ্চার, ইউভিডিয়ো, ভি ফ্লাই স্টেটাস ভিডিয়ো, মোবাইল লেজেন্ডস, ডিইউ প্রাইভেসি, মেইটু।

মন্ত্রীর ভাষ্য, চীনা এইসব অ্যাপের মাধ্যমে চিন তথ্য সংগ্রহ করে বলে অভিযোগ উঠেছে বারে বারে। টিকটকের মতো জনপ্রিয় অ্যাপের বিরুদ্ধে মাঝেমধ্যেই অভিযোগ উঠেছে সমাজে বিরূপ প্রভাব ফেলার। তবু মাঝে কয়েক দিনের নিষেধাজ্ঞা ছাড়া ওই বহুল ব্যবহৃত চিনা অ্যাপের গায়ে এত দিন হাত পড়েনি।

তবে প্রযুক্তি বিষেশজ্ঞদের প্রশ্ন , কেউ যাতে এই সমস্ত অ্যাপ ব্যবহার করতে না-পারেন, সরকার এখন তা নিশ্চিত করবে কী ভাবে? বিশেষত যেখানে অনেক মোবাইলে তার উপস্থিতি মুছে ফেলার উপায় নেই (বাই ডিফল্ট)। শোনা যাচ্ছে, প্রথমত, গুগল প্লে কিংবা অ্যাপলের অ্যাপ স্টোরের থেকে নতুন করে ডাউনলোড ‘ব্লক’ করতে বলা হবে। আর দ্বিতীয়ত, ইন্টারনেট পরিষেবা সংস্থাগুলিকে বলা হবে, ওই অ্যাপগুলির জন্য নেট না-জোগাতে। এই সমস্ত অ্যাপ ব্যবহারকারীর সংখ্যা ভারতে অবশ্য বিপুল। শুধু টিকটকেরই ১০ কোটির বেশি! চিন্তিত ওই সমস্ত অ্যাপে কাজ করা ভারতীয় কর্মীরা।

পিবিএ/এমএ

Posted in top

আরও পড়ুন...