ছাত্রলীগ এখন মূর্তিমান আতঙ্ক: রিজভী

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সভাপতি কাজী রফিকুল ইসলাম শ্রাবণ ও সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েলের উপর ন্যাক্কারজনক হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিএনপি। এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে দলটি।

বুধবার নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী এ দাবি জানান।

রিজভী বলেন, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি কাজী রওনাকুল ইসলাম শ্রাবণ ও সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েলের ওপর হামলা করেছে ছাত্রলীগের দুস্কৃতিকারীরা। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে পুলিশের গুলিতে নিহত ছাত্রদল নেতা নয়ন মিয়ার গ্রামের বাড়ি থেকে ঢাকা ফেরার পথে আড়াইহাজার উপজেলার কৃষ্ণপুরা এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। ছাত্রলীগ ও যুবলীগের সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা এই কাপুরুষোচিত হামলা চালায়। হামলায় গাড়িচালকসহ ছাত্রদলের ১০ জন নেতা আহত হয়েছেন। তারা এখন ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। গুরুতর আহত সাইফ মাহমুদ জুয়েলের অবস্থা এখন শোচনীয়।

তিনি আরো বলেন, ‘আড়াইহাজারে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শরীফ ও গোপালদী পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তাউসীফ ধারালো অস্ত্র দিয়ে সাইফ মাহমুদ জুয়েলকে গুরুতর আহত করে। এরপর পাশেই আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে নিয়ে গিয়ে তাকে আরো মারধর করতে থাকে। এতে তার প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়।’

রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনগুলো কোনো রাজনৈতিক দল নয়। বরং তারা রক্তের নেশায় ছুটে বেড়ানো উন্মার্গগামীদের সিন্ডিকেট। শেখ হাসিনা এদেরকে এতই আশকারা দিয়েছে যে, এরা আইন-কানুন, নিয়ম-নীতি, মানুষের জীবন-জীবিকা কোনো কিছুকেই তোয়াক্কা করছে না। এদের দিয়েই বাংলাদেশকে মৃত্যু উপত্যকা বানানো হয়েছে। এরা বিএনপি নেতাকর্মীদেরকে খুন আর লাশ হিসেবে দেখতে অতি উৎসাহী। এরা লুট-দাঙ্গা, হত্যা, ধ্বংস আর রক্তাক্ত উন্মাদনায় বুঁদ হয়ে আছে। শেখ হাসিনার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও ছাত্রলীগ-যুবলীগের কারণেই দেশে পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে মৃত্যুর সংখ্যা। এক বিভৎস দুঃস্বপ্নের নাম ছাত্রলীগ।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে বিএনপির গণসমাবেশে নজিরবিহীন মানুষের উপস্থিতিতে আওয়ামী সরকার দিশেহারা হয়ে অবৈধ অস্ত্র হাতে তুলে দিয়ে লেলিয়ে দিয়েছে ছাত্রলীগ-যুবলীগকে। এরাই দেশকে বিপজ্জনক চোরা গর্তের মধ্যে ঠেলে দিচ্ছে। এরাই বুয়েটের মেধাবী ছাত্রের জীবন কেড়ে নিয়েছে। ক’দিন আগে নারায়ণগঞ্জে ছাত্রদল নেতা অনিককে হত্যা, শ্রমিক কিশোর বিশ্বজিৎসহ গত ১৪ বছরে শিক্ষাঙ্গনে অসংখ্য তরুণের জীবন কেড়ে নিয়েছে। এদের কারণেই মানবতার অস্তিত্ব এখন ঝুঁকির মধ্যে।

রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দয় মনোবৃত্তি এখন ছাত্রলীগ-যুবলীগের মধ্যে সংক্রমিত হয়েছে। ছাত্রলীগ-যুবলীগের সন্ত্রাসের কলেবর এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে যে, এরা এখন জনসমাজে মূর্তিমান আতঙ্কের নাম। আমি ছাত্রদলের সভাপতি কাজী রওনাকুল ইসলাম শ্রাবণ এবং সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েলসহ ছাত্রদলের নেতাদের ছাত্রলীগ-যুবলীগের পৈশাচিক হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। অবিলম্বে দোষী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর আহ্বান জানাচ্ছি।

এ সময় ছাত্রদলের পক্ষ থেকে দুই দিনের বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা, ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি রাশেদ ইকবাল খান ও সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আফসান ইয়াহিয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন...