জামালপুরে নারীর মধ্যে করোনা উপস্থিতি পায়নি, আইইডিসিআর

পিবিএ,জামালপুর: করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে আইইডিসিআরে নমুনা পাঠানো জামালপুরের ইসলাপুরের সেই নারীর করোনা হয়নি বলে জানিয়েছে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। সোমবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে এক ইমেল বার্তায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন আইইডিসিআর কর্তৃপক্ষ। সেই নারী করোনায় আক্রান্ত হয়নি এ তথ্য নিশ্চিতের পর ঘোষিত ১০ বাড়ির লকডাউন প্রত্যাহার করা হয়েছে। তবে ওই নারীর বাড়িসহ ১০ বাড়ির লোকজনদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়েছে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা থেকে জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার পাথর্শী ইউনিয়নের ঢেঙ্গারগড় গ্রামে বাবার বাড়িতে আসেন সেই নারী ও তার স্বামী। ২৪ বছর বয়স্কা নারীটির স্বামী ঢাকায় পুলিশের সিআইডিতে এসআই পদে চাকরি করেন। বাড়িতে এসেই স্বেচ্ছায় হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকেন তিনি। পরেরদিন নারীটির স্বামী জামালপুর সদরের রানাগাছা ইউনিয়নের নান্দিনায় নিজ বাড়িতে চলে যান এবং তিনিও হোম কোয়ারেন্টাইনে যান। কোয়ারেন্টাইনে থাকাকালীন অবস্থায় সেই নারীটি মধ্যে দেখা দেয় গলাব্যথা, জ্বর ও কাঁশির উপসর্গ। আশেপাশের লোকজনের মধ্যে এ নিয়ে করোনা আক্রান্তের সন্দেহ দেখা দিলে রবিবার বিকেলে নমুনা সংগ্রহ করে রাতেই ঢাকায় আইইডিসিআরে পাঠায় উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। সোমবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার কাছে এক ইমেইলে সেই নারীটি করোনায় আক্রান্ত নন বলে নিশ্চিত করেন আইইডিসিআর কর্তৃপক্ষ।

ইসলামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এ এ এম আবু তাহের পিবিএ’কে জানান, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে যেসব উপসর্গ দেখা দেয়, তা ওই নারীর মধ্যে ছিল। তিনি জ্বর, গলাব্যথা ও কাঁশিতে ভুগছেন। তাই বিষয়টি নিশ্চিত হবার জন্য তার কফ ও থ্রড সোয়াবের নমুনা সংগ্রহ করে রোববার আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছিল। পরীক্ষায় করোনাভাইরাসের উপস্থিতি নিগেটিভ এসেছে। সোমবার রাতে নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদনের কপি তার দপ্তরের ইমেইলে পাঠিয়েছে আইইডিসিআর কর্তৃপক্ষ। সেখানে বলা হয়েছে, ওই নারীর নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাসের জীবাণু পাওয়া যায়নি।

তিনি আরও বলেন, সেই নারী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, এমন সন্দেহ করেছিল স্থানীয়রা। পরীক্ষায় তার শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি, এ তথ্য সেই নারীর প্রতিবেশী ও তার স্বজনদের জানানো হয়েছে। সুস্থ হয়ে না ওঠা পর্যন্ত তাকে প্রয়োজনীয় সেবা দেবেন উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের স্বাস্থ্যকর্মীরা। সেই সাথে সেই নারীসহ আশেপাশের ১০ বাড়ির লকডাউন ঘোষণা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে বাড়িতেই থাকতে বলা হয়েছে ওই ১০ বাড়ির লোকজনদের।

পিবিএ/রাজন্য রুহানি/এএম

আরও পড়ুন...