জামালপুরে ইউপি নির্বাচন: নৌকা ৬, বিদ্রোহী ৪, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৫

রাজন্য রুহানি, জামালপুর: দ্বিতীয় ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জামালপুর সদর উপজেলার ১৫ ইউনিয়নে নৌকা ৬, বিদ্রোহী ৪ ও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৫ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

৫ ইউনিয়নে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় ওসব ইউনিয়নে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থীরা নির্বাচিত হন। ওই ইউনিয়নগুলোতে শুধুমাত্র সদস্য ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ভোটযুদ্ধ হয়।

বাকি ১০ ইউনিয়নে ৪০ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী ভোটে অংশগ্রহণ করেন। এতে ৬ ইউনিয়নে নৌকা ও ৪ ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন।

শুক্রবার (১২ নভেম্বর) সকালে সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহমুদুল আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, কেন্দ‍ুয়া ইউনিয়নের সাইফুল ইসলাম খান আনারস প্রতীক নিয়ে ১৬ হাজার ১৬৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শেখ মাহাবুবুর রহমান (নৌকা) পেয়েছেন ৪ হাজার ৮৮৫ ভোট।

শরীফপুর ইউনিয়নে আলম আলী নৌকা নিয়ে ১৬ হাজার ৯১৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী রফিকুল ইসলাম লিটন অটোরিক্সা প্রতীকে ৪ হাজার ২৬৩ ভোট পেয়েছেন।

লক্ষ্মীরচর ইউনিয়নে মনিরুজ্জামান আনারস প্রতীক নিয়ে ৫ হাজার ৬২৫ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী আফজাল হোসেন বিদ্যুৎ (নৌকা) পেয়েছেন ৪ হাজার ৮৯৮ ভোট।

তুলশিরচর ইউনিয়নে শহিদুল্লাহ নৌকা প্রতীক নিয়ে ৯ হাজার ৭৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী মমিনুল হক আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ৮ হাজার ৫০৪ ভোট।

নরুন্দি ইউনিয়নে লুৎফর রহমান নৌকা নিয়ে পেয়েছেন ৯ হাজার ৩২১ ভোট। তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো. আলাউদ্দিন খান আলম মোটর সাইকেল নিয়ে ৫ হাজার ১০৩ ভোট পেয়েছেন।

ঘোড়াধাপ ইউনিয়নে গোলাম কিবিরিয়া ঘোড়া প্রতীকে ৬ হাজার ৬৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী জিয়াউর রহমান তালুকদার আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫ হাজার ৬৯১ ভোট।

শ্রীপুর ইউনিয়নে মো. আজিজুল হক নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১২ হাজার ৯৩৭ ভোট। তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোহাম্মদ রফিক উল আলম ঘোড়া প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ৬৬০ ভোট।

শাহাবাজপুর ইউনিয়নে মো. আইয়ুব আলী নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১২ হাজার ৯৩৭ ভোট। তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো. রফিকুল ইসলাম আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৯ হাজার ২৪৬ ভোট।

তিতপল্যা ইউনিয়নের মো. আজিজুর রহমান নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১০ হাজার ২১৭ ভোট। তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী হারুনুর রশীদ আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৮ হাজার ৪৪৭ ভোট।

মেষ্টা ইউনিয়নে নাজমুল হক আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৭ হাজার ৩৯৩ ভোট। তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো. এমদাদুল ইসলাম খান মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪ হাজার ৯৮৮ ভোট।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হয়েছেন দিগপাইত ইউনিয়নে আলহাজ মো. মিজানুর রহমান, রানাগাছা ইউনিয়নে আ. জলিল, বাশচঁড়ায় আব্দুল জলিল, রশিদপুরে আব্দুল্লাহ আল-মামুন ঠান্ডা ও ইটাইলে হাফিজুর রহমান স্বপন।

১৫ ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৭ শত ৫৫ জন। এর মধ্যে ১ লাখ ৯৬ হাজার ৭ শত ৫৪ জন পুরুষ এবং ২ লাখ ৪ হজার ১ জন নারী ।

১৩৫টি ওয়ার্ডের মধ্যে সংরক্ষিত ওয়ার্ড সংখ্যা ৪৫টি। ১৬৩টি ভোটকেন্দ্রের মোট ভোটকক্ষের সংখ্যা ছিল ১০১২টি।

এছাড়া সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৫৪২ জন ও সংরক্ষিত মহিলা পদে ১৮৪ জন প্রার্থী ভোটে অংশগ্রহণ করেন।

আরও পড়ুন...