জামালপুরে যুবদল-যুবলীগ সংঘর্ষ: আহত ৫, আটক ৯

রাজন্য রুহানি,জামালপুর: জামালপুরে যুবদল ও যুবলীগের সংঘর্ষে ৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। সেই সঙ্গে জেলা যুবদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মামুনুর রশিদ বাবুসহ ৯ যুবদল নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

শহরের স্টেশন বাজার মোড়ে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে বুধবার সকাল সাড়ে ১১ টায় এ সংষর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও বোমা বিস্ফোরণও হয়। খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ঘটনায় শহরের বটতলা মোড়ে অভিযান চালিয়ে জেলা যুবদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মামুনুর রশিদ বাবু, বিএনপি নেতা সপু, ছাত্রদল নেতা রুকন ও শিহাবসহ ৯ জনকে আটক করেছে পুলিশ। তবে আহতদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি।

বিএনপির দাবি, যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী অনুষ্ঠানে যুবলীগের নেতাকর্মীরা হামলা চালায়। অপরদিকে আওয়ামী লীগ বলছে, যুবলীগের মিছিল বিএনপির কার্যালয়ের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় মিছিলে হামলা চালায় যুবদলের সন্ত্রাসীরা।

হামলার প্রতিবাদে তৎক্ষণিক জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক এডভোকেট ওয়ারেছে আলী মামুনের নেতৃত্বে একটি প্রতিবাদ মিছিল বের হয়। মিছিলটি স্টেশন বাজার থেকে বের হয় শহর প্রদক্ষিণ করে কাচারীপাড়া বটতলা মোড়ে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে সংক্ষিপ্ত পথ সভায় এডভোকেট ওয়ারেছ আলী মামুন বিনা উস্কানিতে যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী অনুষ্ঠানে যুবলীগের নগ্ন হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে হামলাকারীদের গ্রেপ্তার ও গ্রেপ্তারকৃত যুবদলের কর্মীদের মুক্তির দাবি জানান।

জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সজিব খান জানান, জেলা যুবদলের আয়োজনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে শান্তপূর্ণ সমাবেশ চলছিল। এ সময় জেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এরশাদ সোহেলের নেতৃত্বে যুবলীগের কর্মীরা রাম দা, জিআই পাইপসহ দেশীয় অস্রশস্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে সভাস্থলে একের পর এক বোমা বিস্ফোরণ ঘটায়। সেখানে বিএনপি যুবদলের নেতাকর্মীকে এলোপাতাড়ি মারধর করেছে।

এদিকে পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র ছানোয়ার হোসেন ছানু বলেন, কেন্দ্রীয় কর্মসুচির অংশ হিসেবে যুবলীগের মিছিল বিএনপির কার্যালয়ের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় যুবদলের সন্ত্রাসীরা বাধা দেয়। এসময় দুপক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। যুবদলের সমাবেশে যুবলীগের হামলার অভিযোগ সঠিক নয় বলে দাবি করেছেন তিনি।

এ বিষয়ে সদর থানার ওসি মো. রেজাউল ইসলাম খান জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় এ পর্যন্ত ৯ জনকে আটক করা হয়েছে।

 

আরও পড়ুন...