জামালপুরে সর্বোচ্চ ৮০ জনের করোনা শনাক্ত, বৃদ্ধের মৃত্যু

রাজন্য রুহানি,জামালপুর: লকডাউনে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে অবাধে চলাফেরা করায় জামালপুরে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা শনাক্তের সংখ্যা। সংক্রমণে পরপর কয়েকদিন আগের সব রেকর্ড ভেঙে তৈরি হয়েছে নতুন রেকর্ড। শনাক্তে রেকর্ড গড়েছে আজও। অতীতের সব হিসেব পেছনে ফেলে জেলায় সর্বোচ্চ ৮০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে গত ২৪ ঘন্টায়। সেই সঙ্গে সরিষাবাড়ি উপজেলায় করোনায় মারা গেছেন ৭৫ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ।

বুধবার (৭ জুলাই) সকালে এই তথ্য জানান জেলা সিভিল সার্জন ডা. প্রণয় কান্তি দাস।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের করোনা আপডেটে জানা যায়, গত ২৪ ঘন্টায় ৩১১ টি নমুনা পরীক্ষায় ৮০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৫ দশমিক ৭২ শতাংশ। জেলায় মোট সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে ৩২১৮ জন। এরমধ্যে হোম আইসোলেশনে থেকে জামালপুর সদর উপজেলায় ২২ জন ও মাদারগঞ্জ উপজেলায় ৩ জনসহ সর্বশেষ ২৫ জন সুস্থ হয়েছেন। নতুন সুস্থদের নিয়ে জেলায় মোট সুস্থ হয়েছেন ২৫৬৯ জন।

এছাড়া করোনায় আক্রান্ত হয়ে সরিষাবাড়িতে মো. হেলাল উদ্দীন (৭৫) নামে এক বৃদ্ধ মারা গেছেন। তিনি বড়বাড়িয়া গ্রামের মৃত কছিম উদ্দীন শেখের ছেলে। নমুনা পরীক্ষায় ৩০ জুন তিনি করোনা পজেটিভ হন। ৩ জুলাই তিনি ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান। এ নিয়ে জেলায় সর্বমোট মৃত্যু ৫৫ জনে দাঁড়াল।

নতুন শনাক্ত ৮০ জনের মধ্যে জামালপুর সদর উপজেলায় রয়েছেন ৪২ জন, মেলান্দহ উপজেলায় ২ জন, মাদারগঞ্জ উপজেলায় ৯ জন, ইসলামপুর উপজেলায় ২ জন, সরিষাবাড়ী উপজেলায় ৯ জন, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলায় ৪ জন ও বকশীগঞ্জ উপজেলায় ১২ জন।

সর্বশেষ এলাকা ভিত্তিক শনাক্ত:

জামালপুর সদর উপজেলার ডিসি অফিস, জেনারেল হাসপাতাল, নরুন্দী, ফিসারী মোড়, নয়াপাড়া ৪ জন, জাগিরপাড়া, সকাল বাজার, বকুলতলা, মুকুন্দবাড়ী ৪ জন, মেস্টা, বাগেরহাটা, পিলখানা, বজ্রাপুর, জয়রামপুর, বানাকূড়া মোড় ৩ জন, নকিব উদ্দিন হাসপাতাল, শান্তিবাগ ২ জন, নান্দিনা, কাচারীপাড়া, মিয়াপাড়া ২ জন, পাকুয়াদিয়া, বগাবাইদ, সদর, মৃর্ধাপাড়া, ইকবালপুর, তমালতলা, শহীদ হারুন সড়ক, সর্দারপাড়া ২ জন, গোদাশিমলা, শাহাপুর ও বিসিক।

মেলান্দহ উপজেলার ইউএনও অফিস ও মেলান্দহ। মাদারগঞ্জ উপজেলার মোসলেমাবাদ, জোনাইল, বালিজুড়ী, হেমরাবাড়ী, গাবের গ্রাম ৩ জন ও বাণীকূঞ্জ ২ জন। ইসলামপুর উপজেলার দুরমুঠ ও মোশারফগঞ্জ। সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা, চর বালিয়া, মুলবাড়ী, তারাকান্দি, সরিষাবাড়ী, বয়ড়া, আরামনগর, মানিকপটল ও আওনা। দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার খড়মা ৩ জন ও দেওয়ানগঞ্জ বাজার। বকশীগঞ্জ উপজেলার বকশীগঞ্জ, বাট্টাজোড়, তেলীপাড়া, উত্তর বাজার, মিশন হাসপাতাল, পাগলা পাড়া, বিনোদ চর, পানাটিয়া পাড়া ২ জন, সিগারচর, পলাশতলী ও সূর্যনগর।

সিভিল সার্জন ডা. প্রণয় কান্তি দাস আরও জানান, জেলায় এ পর্যন্ত ২৬৭৮৯ টি নমুনার বিপরীতে ৩২১৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। গত কয়েকদিনে আক্রান্তের সংখ্যা রেকর্ড গড়েছে। লোকজন স্বাস্থ্যবিধি না মানলে এবং অপ্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের হলে আক্রান্তের হার বাড়বেই।

 

আরও পড়ুন...