জেনেনিন ‘কম্পিউটার ভিশন সিনড্রোম’ থেকে মুক্তির উপায়

পিবিএ ডেস্ক: অনেকেই দিনের অনেকটা সময় কাটান কম্পিউটার বা মোবাইলের স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে। এর ফল চোখ লাল হয়ে পানি পড়া, চোখে আর ঘাড়ে ব্যথা সঙ্গে চোখে চুলকানি ও চোখে করকর করছে কিছু একটা, এমন একটা ভাব। এই সমস্যার নাম ‘সিভিএস’ অর্থাৎ ‘কম্পিউটার ভিশন সিনড্রোম’। এই ব্যাপারটা খুব গুরুতর নয় ঠিকই কিন্তু লাগাতার সমস্যায় দৃষ্টিশক্তি কমে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে। চিকিৎসকদের পরামর্শে কয়েকটা নিয়ম মেনে চললেই কম্পিউটার ভিশন সিনড্রোমের হাত এড়ানো যায়।

বিশ্বের ১ কোটি ২০ লক্ষ মানুষের স্বল্প দৃষ্টিশক্তির কারণে চশমার প্রয়োজন। কিন্তু অধিকাংশ মানুষেরই চশমা কিনে পরার সামর্থ্য নেই। তাই তাদের দৃষ্টিশক্তি ক্রমশ অস্বচ্ছ হয়ে পড়ছে। আবার প্রতি ৪ জন স্বল্প দৃষ্টির মানুষের মধ্যে ৩ জনেরই সমস্যার সমাধান করা যায় সহজে। অথচ সচেতনতার অভাবে তাঁরা ক্রমশ দৃষ্টিহীন হয়ে পড়ছে।

চোখে সমস্যার মূলে আছে কম্পিউটার আর মোবাইল ব্যবহার। কম্পিউটার ভিশন সিনড্রোম (সিভিএস)-এর প্রধান কারণ নাগাড়ে এক দিকে ঘাড় কাত করে বা সোজা করে রাখা। এর ফলে ঘাড়ের পেশিতে রক্ত চলাচল কমে শক্ত হয়ে যায়। তাই ঘাড়ে-মাথায় ব্যথা করে। তবে শুধু ঘাড় মাথা আর চোখেই সমস্যা আটকে থাকে না, পিঠে, কাঁধে আর হাতেও ব্যথা করে। এ সবের মূলেই কিন্তু এক ভঙ্গিমায় অনেক্ষণ ধরে বসে থাকা।

আমেরিকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অকুপেশনাল সেফটি অ্যান্ড হেলথের সমীক্ষায় জানা গিয়েছে যে যারা দিনে গড়ে দুই থেকে তিন ঘণ্টা কম্পিউটারে কাজ করেন, তাদের মধ্যে প্রায় ৯০% এই সমস্যায় ভুগছেন। এদের মধ্যে আবার বেশিরভাগের বয়স ১৮ থেকে ২৫ বছর।

কম্পিউটার ভিশন সিনড্রোমের পিছনে কয়েকটি কারণ আছে, যা একটু চেষ্টা করলেই এড়িয়ে চলা যায়। স্বাভাবিক নিয়মে আমাদের ঘন ঘন চোখের পলক পড়ে। চোখের পাতার তলায় থাকে সূক্ষ্ম সূক্ষ্ম গ্রন্থি। পলক পড়লে এর থেকে বিশেষ ধরনের পানি বের হয়। এটি চোখের মণিকে ভিজিয়ে রাখে।

চোখ ভাল রাখতে ভিজে থাকা দরকার। কিন্তু কম্পিউটার বা মোবাইলে কাজ বা চ্যাট করার সময় বেশিরভাগ মানুষই অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে। চোখের পলক পড়ে না। তাই লুব্রিক্যান্ট বেরতে পারে না। এর ফলে চোখ যায় শুকিয়ে।

চোখ শুকিয়ে গেলেই যত সমস্যার উৎপত্তি। চোখ করকর করে, লাল হয়ে পানি পড়ে, ঝাপসা দেখায়, কখনও কখনও ডাবল ভিশন হয়, তার সঙ্গে ঘাড়ে মাথায় আর পিঠে ব্যথা করতে পারে। কাঁধে আর কব্জিতেও ব্যথা করে। কম্পিউটারের স্ক্রিন বেশি উজ্জ্বল হলে বা কম আলোয় কাজ করলে অথবা খুব কাছে বা অনেকটা দূরে স্ক্রিন থাকলে সমস্যা বেশি হয়। শুধু কম্পিউটারই নয়, মোবাইল, ট্যাবলেট বা আই প্যাড ব্যবহার করেও একই সমস্যা দেখা যায়।

চক্ষু বিশেষজ্ঞদের মতে, ২০ মিনিট কম্পিউটারে কাজ করার পর ২০ ফুট দূরে তাকাতে হবে ২০ সেকেন্ডের জন্যে। খুব ভাল হয় উঠে দাঁড়িয়ে দু-তিন মিনিট জানালার পাশ থেকে ঘুরে এলে। সবুজের দিকে তাকালে চোখের আরাম হয়। কিছুক্ষণ কাজ করার পর উঠে গিয়ে চোখে পানি দিয়ে এলেও ভাল হয়। প্রয়োজন হলে আইটোন বা রিফ্রেশ জাতীয় ড্রপ ব্যবহার করতে হবে। বিশেষ করে যাদের চোখে অল্পস্বল্প পাওয়ার আছে তাদের চশমা ছাড়া কাজ করলে সমস্যা বেড়ে যায়। কম্পিউটার যদি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত যন্ত্রের কাছাকাছি থাকে এর ঠান্ডা বাতাসে চোখ আরও শুকিয়ে যায়। এ ছাড়া নিয়ম করে ঘাড় ও চোখের ব্যায়াম করা দরকার।

অনেকেই একটানা বসে থাকেন কম্পিউটার-ল্যাপটপের সামনে। সেটি ঠিক নয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে কিছু ক্ষণ পর পর একটু সময়ের জন্য স্ক্রিনের সামনে থেকে উঠতে হবে অবশ্যই। সুযোগ থাকলে সামান্য হাঁটাহাঁটিও করা যেতে পারে।

কম্পিউটার ও মোবাইলের স্ক্রিন যেন অতিরিক্ত উজ্জ্বল না হয়, আলো কমিয়ে রাখুন। স্ক্রিন থেকে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। সঠিক ভঙ্গিমায় বসে কাজ করতে হবে। কম্পিউটারের মনিটরের উপরের দিক চোখের সোজাসুজি থাকলে ভাল হয়। চশমা পরে কাজ করলে অ্যান্টিগ্লেয়ার লেন্স ব্যবহার করলে ভাল হয়। চোখে লুব্রিক্যান্ট আই ড্রপ ব্যবহার করতে হবে।

২০– ২০–২০ নিয়ম মেনে চলতেই হবে, এমনই মত চিকিৎসকদের। অন্তত পক্ষে ২০ মিনিট পর পর যদি চোখকে বিশ্রাম দেওয়া যায় তা হলে উপকার হবে চোখেরই। তার জন্য যদি ২০ মিনিট পর এক মিনিট করে চোখ বন্ধ করে থাকা যায়। বা ঘরের বাইরের সবুজ গাছের দিকে তাকিয়ে থাকা যায় তা হলে খুব ভালো ফল পাওয়া যায়। এই ক্ষেত্রে কম্পিউটারের পিছনের দেওয়াল বা পর্দা যদি সবুজ রঙের হয় তা হলে খুবই ভালো হয়। সমস্যা হচ্ছে মনে হলেই ফেলে না রেখে সময় বের করে চলে যাওয়া উচিত চক্ষু চিকিৎসকের কাছে। চিকিৎসকের উপযুক্ত পরামর্শ নেওয়া এবং তা অবশ্যই মেনে চলা উচিত।

পিবিএ/এমএসএম

আরও পড়ুন...