তিস্তার পানি বন্টন আগের অবস্থানে,আসামের নাগরিকত্ব ইস্যু ভারতের বিষয়: জয়শঙ্কর

 

পিবিএ ঢাকা:  বাংলাদেশ-ভারত পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক শেষে  ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর  এনআরসি বা আসামের নাগরিকপুঞ্জি ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন দেশটির । আর তিস্তার পানিবন্টন নিয়ে তার সরকারের আগের অঙ্গীকার এখনও বহাল আছে বলেও দাবি করেন তিনি।

জয়শঙ্কর আরও বলেন, অভিন্ন সব নদীর পানি ব্যবস্থাপনা নিয়ে ফর্মূলা খুঁজছে ঢাকা ও দিল্লী। বাংলাদেশ-ভারত-মিয়ানমার তিন দেশের স্বার্থেই রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরা জরুরি।

মঙ্গলবার দুপুরে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন যমুনায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেনের সঙ্গে বৈঠকের পর ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন। টানা প্রায় সোয়া ঘন্টা চলে এই বৈঠক। সেখানে আসে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের অমীমাংসিত সব বিষয়।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জয়শঙ্কর বলেন, ৫৪টি অভিন্ন নদী নিয়ে কীভাবে নিজেদের স্বার্থ সুরক্ষা করা যায়, তার ফর্মুলা খুঁজছে দুই দেশ। পারস্পরিক সমঝোতার ভিত্তিতে অভিন্ন নদীর পানিবণ্টন সমস্যার সমাধান করা হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের সব ধরনের উন্নয়নমূলক কাজে ভারতের সর্বাত্মক সহায়তা অব্যাহত থাকবে। বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যকার অমীমাংসিত তিস্তাচুক্তি প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে জয়শঙ্কর বলেন, এ চুক্তি নিয়ে আগের অবস্থানেই ভারত। প্রতিশ্রুতি মোতাবেক আমরা এ চুক্তি করে যাব।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বিষয়ে ভারতের অবস্থান সম্পর্কে জানতে চাইলে জয়শঙ্কর বলেন, সবার সুবিধার কথা ভেবে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে জোর দেবে ভারত। স্বেচ্ছায়, নিরাপদে এবং মর্যাদার সঙ্গে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে ভারত সব সময় সমর্থন দিয়ে আসছে। এ জন্য ভারত সম্ভাব্য সব ধরনের মানবিক সহায়তা দিতে প্রস্তুত রয়েছে। এরই মধ্যে রাখাইনে ভারত ২৫০টি বাড়ি হস্তান্তর করেছে।

এর আগে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে জাতির জনকের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান এস জয়শঙ্কর। বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন তিনি। বুধবার সকালে কাঠমান্ডুর উদ্দেশে ঢাকা ছাড়বেন ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী।

পিবিএ/জেডআই

আরও পড়ুন...