নওগাঁয় ধর্মঘটে বন্ধ দূরপাল্লার টিকিট কাউন্টার ভোগান্তিতে যাত্রীরা

ইউনুস আলী ফাইম,নওগাঁ: কেরোসিন ও ডিজেলের দাম প্রতি লিটারে ১৫ টাকা বাড়ানোর প্রতিবাদে সারা দেশের মতো নওগাঁতেও অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট চলছে। শুক্রবার (০৫ নভেম্বর) সকাল ৬টা থেকে শুরু হয় এই ধর্মঘট। ধর্মঘটে বন্ধ রয়েছে দূরপাল্লার টিকিট কাউন্টারগুলো। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন দূরপাল্লার যাত্রীরা।

জেলার ঢাকা ও বালুডাঙ্গা বাস্ট্যান্ড ঘুরে দেখা যায়, ভোর থেকে নওগাঁর সব দূরপাল্লার বাস সারিবদ্ধ করে রেখে চালক ও সহকারীরা চলে গেছেন। কেউবা গাড়ির পাশে বসে আছেন নিশ্চুপ হয়ে। টিকিট কাউন্টারগুলো তালাবদ্ধ। অপেক্ষমাণ যাত্রীরা বন্ধ কাউন্টারের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন। নওগাঁ-ঢাকা, নওগাঁ-চট্টগ্রামসহ সকল রুটের বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোতে রিকশার পাশাপাশি সীমিত আকারে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, সিএনজি চলাচল করছে।

ঢাকা বাসস্ট্যান্ডে বাসের অপেক্ষা করছেন মো.সাইফুদ্দিন। তিনি বলেন, আমি জানতাম না ধর্মঘট চলছে। কিন্তু গাজীপুরে কর্মস্থলে যেতেই হবে। বাস বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছি।

সাপাহার উপজেলা সদরের বাসিন্দা সাইফুল বলেন, সান্তাহার-ঢাকা রুটে একটা ট্রেন রয়েছে। আমার বাড়ি দূরে হওয়ায় সময়মত এসেও ট্রেনে উঠতে পারিনি। এখন অপেক্ষায় আছি কোনোভাবে যদি ঢাকায় যাওয়া যায়। যদি ব্যবস্থা না হয় তাহলে বাড়ি ফিরে যাব।

নওগাঁ মোটর মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক সফিকুল আলম বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোয় এই ধর্মঘট। যতদিন সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলের সঙ্গে পরিবহন নেতাদের সমন্বয় না হবে ততদিন এই ধর্মঘট চলবে। তবে আমরা আশা করছি, খুব দ্রুত একটা সমাধান আসবে।

নওগাঁ মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এস এম মতিউজ্জামান মতি বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির সঙ্গে সমন্বয় করে ভাড়া বাড়ানোর দাবি জানিয়ে এই কর্মবিরতি।

তিনি আরো বলেন,এমনিতেই পরিবহন খাত লোকসানে। তার উপর জ্বালানি তেলের দাম হঠাৎ করে বৃদ্ধি পাওয়ায় লোকসানের পরিমাণ আরো বেড়ে যাবে। জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হলেও পরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি হয়নি।

আরও পড়ুন...