বগুড়ায় সিএনজি চালক হত্যা মামলায় আটক-৩

পিবিএ,বগুড়া: বগুড়ায় সদর উপজেলায় সিএনজি চালক আজগর আলী পিয়াল (২৮) হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করেছে সদর থানা পুলিশ। মাদক সেবনের কথা বলে তাকে কবরস্থানে ডেকে নিয়ে যায় তার কাছের দুই বন্ধু। পরে তাকে ঐ কবরস্থানেই মাথায় ইট দিয়ে আঘাত করে হত্যা করে অটো রিকশাটি নিয়ে পালিয়ে যায় হত্যাকারীরা। পিয়াল হত্যার সাথে জড়িত তার দুই বন্ধু সহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে সদর থানা পুলিশ।

মঙ্গলবার দুপুরে বগুড়া সদর থানার সুত্রে জানা যায় গ্রেফতারকৃতরা হলেন বগুড়া সদরের ছোট কুমিড়া গ্রামের মৃত জমির উদ্দিনের ছেলে হান্নান (৩২), একই গ্রামের দুলু খানের ছেলে রাশেদ (৪০) ও দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট থানার নয়াপাড়া গ্রামের আলমগীর হোসেনের ছেলে নুরুন্নবী ওরফে মুন্না (২৫)।

গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে রাশেদ ও হান্নান জিঙ্গাসাবাদে জানায়, গত ২১ মার্চ সন্ধ্যার পর মাদক সেবনের কথা বলে তারা আজগর আলী পিয়ালকে অটোরিকশাসহ ছোট কুমিড়া গ্রামের পিছনে কবরস্থানে ডেকে নেয়। সেখানে ৩জন এক সাথে মাদক সেবন করার সময় পিয়ালের মাথায় ইট দিয়ে আঘাত করে তাকে হত্যা করা হয়। এরপর তার অটোরিকশা নিয়ে দুইজন পালিয়ে যায়। ঐ রাতেই অটোরিকশাটি দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাটে নিয়ে গিয়ে মুন্নার কাছে রাখে বিক্রি করার জন্য।

উল্লেখ্য,গত ২১ মার্চ সিএনজি চালক আজগর আলী পিয়াল নিখোঁজ হওয়ার পর ২৮ মার্চ শনিবার সন্ধ্যায় পুলিশ ছোট কুমিড়া গ্রামের কবরস্থানে একটি পুরাতন কবর থেকে তার লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় নিহতের বাবা মহিদুল ইসলাম ২৮ মার্চ রাতে সদর থানায় মামলা করেন।

বগুড়া সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান এ পতিবেদক-কে বলেন, রাশেদ ও হান্নানের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ঘোড়াঘাট থেকে মুন্নাকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে অটোরিকশাটি এখনও উদ্ধার করা যায়নি।

পিবিএ/জিএম মিজান/বিএইচ

আরও পড়ুন...