মসজিদ বন্ধ রাখা যাবে না

মসজিদে উপস্থিতি সীমিত করার পক্ষে আলেম-ওলামারা


পিবিএ,ঢাকা: বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস প্রার্দুভাবের কারণে মসজিদে মুসল্লিদের উপস্থিতি সীমিত করার পক্ষে মতামত দিয়েছেন দেশের বিশিষ্ট আলেম-ওলামারা। তারা বলেছেন, করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করার প্রেক্ষাপটে ইসলামের বিধি-বিধান অনুসরণ করে এ মতামত দেওয়া হয়েছে। তবে মসজিদ বন্ধ রাখা যাবে না। সর্বসাধারণ নিজ নিজ ঘরে অবস্থানপূর্বক সুরক্ষা পদ্ধতি অবলম্বন করেই নামাজ আদায় করে নিতে হবে।

মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁওস্থ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এক বৈঠকে আলেম-ওলামরা এমন মত দিয়েছেন।

তারা বলেছেন, ‘করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে এবং মানুষের ব্যাপক মৃত্যুঝুঁকি থেকে সুরক্ষায় আকস্মিক পদক্ষেপ হিসেবে সর্বপ্রকার জমায়েত বন্ধের পাশাপাশি মসজিদগুলোয় পাঁচওয়াক্ত নামাযে সম্মানিত মুসলিল্গগণের উপস্থিতি সীমিত ও ক্ষুদ্র পরিসরে রাখা যেতে পারে। মসজিদের ইমাম মুয়াজ্জিন ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা সুরক্ষা পদ্ধতি অবলম্বন করে মসজিদে আজান ও জামাত যথাসম্ভব বজায় রাখবেন।’

আলেম-ওলামরা আরও বলেন, ‘মসজিদ বন্ধ রাখা যাবে না। তবে সর্বসাধারণ নিজ নিজ গৃহে অবস্থান করে সুরক্ষা পদ্ধতি অবলম্বন করে নামাজ আদায় করে নিবেন। সবাই ব্যক্তিগতভাবে তওবা, ইস্তিগফার অব্যাহত রাখবেন। মহান আল্লাহর ক্ষমা, দয়া ও করুনা প্রার্থনা করে দোয়া করুন।’

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক আনিস মাহমুদ সবলেন, ‘করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে ইসলামি বিধি-বিধান অনুসরণ করে মসজিদে মুসল্লিদের উপস্থিতি সীমিত করার পক্ষে আলেম-ওলামাদের মতামত দিয়েছেন। ‘

এর আগে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে মুসল্লিদের বাসায় অজু করে ও সুন্নত নামাজ পড়ে জুমার নামাজে আসার আহবান জানিয়েছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক

তিনি বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে সরকারের পক্ষ থেকেও সব ধরনের জনসমাগম পরিহার করাসহ বেশ কিছু নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

যারা বিদেশফেরত জ্বর-হাঁচি-কাশিতে আক্রান্ত ও অসুস্থ ব্যক্তিদের মসজিদে বা জনসমাগমে যাওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য অনুরোধ করেন তিনি।

বৈঠকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন- আল-হাইআতুল উলিয়া লিল জামিআতিল কওমিয়া বাংলাদেশের কো-চেয়ারম্যান আল্লামা আব্দুল কুদ্দুস, মারকাযুত দাওয়ার শিক্ষা সচিব মুফতি মুহাম্মদ আবদুল মালেক, শায়খ যাকারিয়া (র.) ইসলামিক রিসার্চ সেন্টারের মহাপরিচালক মুফতি মীযানুর রহমান সাঈদ, জামেয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম আকবর কমপ্লেক্সের মুহতামিম মুফতি দিলওয়ার হোসাইন, জামেয়ার রহমানিয়া মোহাম্মদপুরের প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহফুজুল হক ও ঢাকা নেছারিয়া কামিল মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল ড. আল্লামা কাফীলুদ্দীন সরকার সালেহী।

পিবিএ,ঢাকা: 

আরও পড়ুন...