মহাদেবপুরে আত্রাই নদীর তীরের মাটি ইটভাটায় বিক্রির মহোৎসব

পিবিএ,মহাদেবপুর: নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার শিবগঞ্জ ঘাট, দোহালী, লক্ষণপুর ও শাহজাদপুর এলাকায় স্থানীয় একটি চক্র আত্রাই নদীর তীরের মাটি কেটে বিক্রি করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রায় দুই মাস ধরে বাঁধের পাশ থেকে প্রায় এক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে নদীর উভয় তীরের মাটি কাটা হচ্ছে। এতে নদীর গতি পরিবর্তন ও বর্ষায় তীর রক্ষা বাঁধ ভেঙে বড় ধরনের ক্ষতির আশঙ্কা করছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, আত্রাই নদীর পূর্ব তীরে উপজেলার উত্তরগ্রাম ইউনিয়নের দোহালী, শিবগঞ্জ ঘাট এবং নদীর পশ্চিম তীরে লক্ষণপুর ও শাহজাদপুর এলাকায় বাঁধের পাশ থেকে খননযন্ত্র দিয়ে মাটি কেটে ট্রাকে তোলা হচ্ছে। এসব এলাকায় বাঁধের পাশের জমির উপরিভাগ থেকে তিন থেকে সাত ফুট পর্যন্ত গভীর করে মাটি কেটে ট্রাক্টর ও ট্রাকে ভরে বিভিন্ন ইটভাটায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। শিবগঞ্জ ঘাট এলাকায় খননযন্ত্রের পাশাপাশি ১০-১২ জন শ্রমিক কোদাল দিয়ে মাটি কেটে তিনটি ট্রাক্টরে তুলছেন।

শাহজাদপুর এলাকায় বাঁধের পাশ থেকে মাটি কাটার কাজের তদারকি করছিলেন সাইফুল ইসলাম নামের এক তরুণ। তিনি জানান, এখান থেকে মাটি কেটে ‘অর্ডার’ অনুযায়ী বিভিন্ন ইটভাটায় পৌঁছে দেওয়া হয়। বালু ব্যবসায়ী মোয়াজ্জেম হোসেন নদীর তীরবর্তী জমির মালিকদের কাছ থেকে মাটি কিনে নিয়েছেন। চুক্তি অনুযায়ী এসব জমির উপরিভাগ থেকে মাটি কাটা হচ্ছে। শিবগঞ্জ ঘাট এলাকায় মাটি কাটছিলেন শ্রমিক বেলাল, জিয়াউল, রাজীব ও আনারুল। তারা বলেন, প্রায় দুই মাস ধরে এই বাঁধ এলাকায় মাটি কাটছেন। এই মাটি বিভিন্ন ইটভাটায় নেওয়া হয়। এ ছাড়া অনেক লোক বসতবাড়ি ও রাস্তার কাজে ব্যবহারের জন্য এখান থেকে মাটি কিনে নিয়ে যান।

স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তির অভিযোগ, নদীর তীর থেকে মাটি কাটা এই চক্রে নেতৃত্ব দিচ্ছেন বালু ব্যবসায়ী মোয়াজ্জেম হোসেন। তার সঙ্গে আছেন বিভিন্ন ইটভাটা মালিক ও কয়েকজন ঠিকাদার। তারা প্রশাসনের অনুমতি ছাড়াই নদীর তীরবর্তী জমির মালিকদের কাছ থেকে প্রতি বিঘার মাটি ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকায় কিনে নেন। এরপর মাটি কেটে নিজেদের ইটভাটায় নেওয়ার পাশাপাশি অন্য ইটভাটা মালিকদের কাছে বিক্রি করেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, ভাটা মালিকেরা ক্ষমতাসীন দলের লোক এবং প্রভাবশালী হওয়ায় এলাকাবাসী মাটি কাটার প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেন না।

নদীর তীর থেকে মাটি কাটার বিষয়ে জানতে চাইলে মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ‘শুধু আমি না, নদীর তীর থেকে আরও অনেকেই মাটি কাটছেন। আমি জমির মালিকদের কাছ থেকে মাটি কিনে নিয়েছি। এরপর মাটি কাটছি।’ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) বা প্রশাসনের কাছ থেকে কোনো অনুমোদন নেওয়া হয়েছে কি না, জানতে চাইলে তিনি ‘না’ সূচক উত্তর দেন।

গৌতম চন্দ্র, আনন্দ কুমার, বজলুর রশিদ, আনোয়ারসহ আট-নয়জন স্থানীয় বাসিন্দা জানান, বাঁধের পাশ থেকে খাড়াভাবে মাটি কেটে বিক্রি করায় প্রতি বর্ষায় বাঁধসংলগ্ন পাড়ের মাটি ভেঙে নদীতে বিলীন হয়ে যায়। এখন যেভাবে মাটি কাটা হচ্ছে, তাতে নদীর দুই পাশের রাস্তা হিসেবে ব্যবহৃত বাঁধ ভেঙে যেতে পারে। আর বাঁধ ভেঙে গেলে যোগাযোগব্যবস্থা বিঘ্নিত হওয়ার পাশাপাশি আশপাশের এলাকা তলিয়ে যাবে।

উপজেলার উত্তরগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আবিদ হোসেন সরকার বলেন, কিছু কিছু জমির মালিক টাকার বিনিময়ে মাটি বিক্রি করছেন। কিন্তু নদীর তীর কাটার অধিকার কারও নেই। নদীর তীর কাটার ফলে বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে। এ ধরনের অপতৎপরতার বিরুদ্ধে প্রশাসনের ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।

পাউবোর নওগাঁ কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী সুধাংশু কুমার সরকার বলেন, আত্রাই নদীর বাঁধের পাশ থেকে মাটি কাটার বিষয়টি তাঁর জানা নেই। বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধের ক্ষতি করে নদীর তীরের মাটি কাটা অবৈধ। খোঁজ নিয়ে ঘটনার সত্যতা পেলে স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মহাদেবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই। কেউ অভিযোগও করেনি। তবে বাঁধের ক্ষতি করে মাটি কাটা খুবই গুরুতর অপরাধ। সরেজমিনে সত্যতা পেলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে জরিমানাসহ প্রয়োজনীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পিবিএ/ইউসুফ আলী সুমন/বিএইচ

আরও পড়ুন...