মিরপুরে জাল টাকার মেশিনসহ গ্রেফতার ৬

 

পিবিএ,ঢাকা: রাজধানীর মিরপুর পল্লবী ও বসুন্ধরা আবাসিক পৃথক দু’টি এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ দেশি-বিদেশি জাল নোট, জাল টাকা তৈরির মেশিন ও কাঁচামালসহ জাল টাকা তৈরী সংঘবদ্ধ চক্রের ছয়জন সক্রিয় সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-২) ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- মোঃ সেলিম (৪০), মোঃ মনির (৪৫), মোঃ মঈন (৪০), মোছাঃ রমিজা বেগম (৪০), মোছাঃ খাদেজা বেগম (৪০), ও মোঃ শাহীনুর ইসলাম (১৫)। এসময় তাদের কাছ থেকে প্রায় ২৫/৩০ কোটি টাকার সমপরিমাণ জাল টাকা বানানোর জন্য প্রয়োজনীয় কাচামাল (কাগজ, কালি, জলছাপ দেয়ার সমাগ্রী) উদ্ধার করা হয়।

সোমবার দুপুরে এলিট ফোর্স র‌্যাব-২ এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর এইচ এম পারভেজ আরেফিন গনমাধ্যমকে জানান, রোববার দিবাগত রাত ১২টার দিকে রাজধানীর মিরপুর পল্লবী ও বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় জাল টাকার বিরুদ্ধে একটি অভিযান পরিচালনা করে। মিরপুর থানার ১২/ই ব্লক বাসা নং ৬২ এবং বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা জি ব্লক বাসা নং ১৬১ পৃথক অভিযানে প্রায় চার কোটি (১০০০ টাকার নোট ) জাল টাকা এবং ভারতীয় রুপি (আনুমানিক ৪০ লক্ষ, ৫০০ ও ২০০০ রুপির নোট)সহ ৬ জন জাল টাকা ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়।
র‌্যাব-২ এর এই কর্মকর্তা আরও জানান, এসময় জাল টাকা বানানোর জন্য ব্যবহৃত ল্যাপটপ, প্রিন্টার, ডাইস, কাটার উদ্ধার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে প্রায় ২৫/৩০ কোটি টাকার সমপরিমাণ জাল টাকা বানানোর জন্য প্রয়োজনীয় কাচামাল জব্দ করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাবকে জানায়, তারা (জাল টাকা তৈরীর) সংঘবদ্ধ চক্রের সদস্য। এদের মধ্যে মোঃ মঈন মোঃ মনিরকে জাল টাকা ছাপানোর সহযোগিতা করত এবং প্রিন্ট করা টাকা কাটিং করার পরিকল্পনা করেছিলো। এবং রমিজা বেগম সেলিমকে কাগজে আঠা লাগানোর কাজে সহয়তা করতো এবং প্রয়োজনীয় ফুটফরমাশ খাটতো। মোছাঃ খাদিজা বেগম এবং শাহীনুর সাদা কাগজে নিরাপত্তা সুতার জলছাপ দেয়ার কাজ করতো।

র‌্যাব কর্মকর্তারা জানায়, এ বিপুল পরিমান জাল টাকা আসন্ন কোরবানি ঈদে বাজারে ছাড়ার পরিকল্পনা ছিল। প্রাথমিক জিঞ্জাসাবাদে তারা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে। একটি বিশাল সিন্ডিকেট দেশের অভ্যন্তরে কাজ করছে। জাল টাকার বিরুদ্ধে র‌্যাবের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

পিবিএ/মনির হোসেন জীবন/এমআর

আরও পড়ুন...