রাইড শেয়ার চালুর দাবিতে বিক্ষোভ

পিবিএ,ঢাকা: করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ায় চলমান কঠোর বিধিনিষেধের আওতায় রাইড শেয়ারিং সার্ভিস বন্ধের প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছেন চালকরা। এসময় রাজধানীর মগবাজার চৌরাস্তায় ফ্লাইওভারের নিচের রাস্তা বন্ধ করে দেন তারা। এতে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ রেখে গেছে।

বুধবার (৭ এপ্রিল) মগবাজার চৌরাস্তা এলাকায় কয়েকশ’ রাইডার তাদের মোটরসাইকেল রাস্তায় রেখে বিক্ষোভ করেন। এসময় তারা রাইড শেয়ারিং চালুর দাবি জানান। এ সময় চারদিকের রাস্তা অবরোধ করেন রাইডাররা।

চালকরা জানান, চাকরি না থাকায় সংসার চালাতে মোটরসাইকেলে রাইড শেয়ারিং করেন তারা। সরকারের নির্দেশনায় গণপরিবহন চললেও মোটরসাইকেল বন্ধ করে তাদের পেটে লাথি মারা হয়েছে।

মোটরসাইকেল চালক নুরুল আলম জানান, রাস্তায় দাঁড়ালেই আমাদের বিনা অপরাধে মামলা দিয়ে হয়রানি করছে পুলিশ। তার ওপর রাইডশেয়ারিং বন্ধের ঘোষণা। আমরা চলব কীভাবে। চাকরি হারিয়ে আমরা রাইড শেয়ারিংয়ের ওপর নির্ভর করেই পেট চালাই।

অপর এক মোটরসাইকেল চালক জানান, সব যানবাহন চলছে। বিআরটিসির মতো গাড়িতে দ্বিগুণ যাত্রী পরিবহণ করছে। সেখানে যদি করোনা না ছড়ায় আমরা একজন যাত্রী নিয়ে কীভাবে করোনা ছড়াই? এসব অত্যাচার আমরা মেনে নিতে চাই না। তাই আজ রাস্তায় নামলাম আমরা।

মোটরসাইকেল চালক সাইফুল জানান, কিছু হলেই দু-চার হাজার টাকার মামলা দেয়। আমাদের অন্য কোনো আয় নেই। এটা বন্ধ করলে আমরা কী খাবো? আমাদের মোটরসাইকেলের কিস্তি আছে। এগুলো বন্ধ করলে আমরা কীভাবে শোধ করব।

গত ২৯ মার্চ করোনা প্রতিরোধে ১৮ দফা নির্দেশনা জারি করেছে সরকার। বাসসহ সব গণপরিবহনে অর্ধেক সিট খালি রেখে যাত্রী পরিবহনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বাসের ভাড়া বেড়েছে ৬০ শতাংশ। মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) আবার এক বিজ্ঞপ্তিতে দেশের সব সিটি করপোরেশন এলাকায় পরিবহন চলাচলের অনুমতি দিয়েছে সরকার। তবে রাইড শেয়ারিং এখনও বন্ধই রাখা হয়েছে।

পিবিএ/জেডএইচ

আরও পড়ুন...