রিবেল মনোয়ার: সাংবাদিক থেকে উদ্যোক্তা

পিবিএ: রিবেল মনোয়ার, রংপুর জেলার মনুরছড়া গ্রামে জন্ম। কৃষিভিত্তিক ও বণিক পরিবারের সন্তান। পড়াশোনা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষাবিজ্ঞানে অনার্স। এরপর মার্কেটিংয়ে বিবিএ ও এমবিএ সম্পন্ন করেন রয়্যাল ইউনিভার্সিটে অব ঢাকা থেকে। এরপর সুইস ইউনিভার্সাল হায়ার এডুকেশনাল ইনস্টিটিউট , জুরিখ, সুইজারল্যান্ড থেকে ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটিং এন্ড সাইবার সিকিউরিটি। ডিপ্লোমা ইন স্ট্রাটেজিক ম্যানেজমেন্ট। এবং বিজনেস লিডারশিপে গবেষনা সম্পন্ন করেন।

বর্তমানে একাধিক বিষয়ে দেশে ও বিদেশে পড়াশোনা করছেন সেইসাথে তৈরি করেছেন দেশের প্রতিষ্ঠিত কয়েকটি কোম্পানী। আরএম গ্রুপের আরএম ফাউন্ডেশন , আরএম শিপিং ও ড্রেজারস। । এছাড়াও এডিসন গ্রুপ ( সিমফোনী মোবাইল এর মাদার কোম্পানীর) এর এডিসন ফাউন্ডেশনের আইটি ও এগ্রো সেক্টরের প্রতিষ্টাতা সিওও তিনি। ড্যাফোডিল গ্রুপের ডলফিন ডিজিটাল, ড্যাফোডিল সাইবার সিকিউরিটি সলিউশন, ড্যাফোডিল মাল্টিমিডিয়া, স্কিল জবস এ তিনি ছিলেন মার্কেটিং ডিরেক্টর।

কর্পোরেট কালচার, ওয়ার্ক এথিকস্, ইনোভেটিভ অ্যাপ্রোচ, স্ট্রাটেজিক প্লানিং ও বিজনেস ডেভেলপমেন্টে বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মের প্রতিনিধি মনোয়ারুল ইসলাম রিবেল। ব্যবসা-বাণিজ্যে তার হাতে খড়ি সেই কৈশোর বয়স থেকে যখন সে তার বাবার দোকানে সাহায্য করার জন্য সময় দিতেন। কিন্তু প্রকৃত অর্থে, প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবসা এবং বিনিয়োগ ক্ষেত্রে বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ক্যারিয়ারে আছেন দীর্ঘ ১০ বছরেরও অধিক সময় ধরে। তিনি তার ক্যারিয়ারকে নিত্য নতুনভাবে এক্সপিরিমেন্ট করে বিজনেস ডেভেলপমেন্টকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গ্যাছে।

যখন কোন কোম্পানি তার অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য সংগ্রাম করে, অথবা আর্থিক সক্ষমতা শূন্যের কোঠায় চলে যায়, যখন এই ধরনের উদ্যোগের সাথে জড়িত সকলে জন্য একটি শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয় তখন মনোয়ারুল ইসলাম রিবেল তার সৃজনশীল চিন্তাধারা, ব্যবসায়ীক জগতের সর্বশেষ জ্ঞান ও নিজস্ব ইনটিউশন এবং এক্সপিরিয়েন্সের সমন্বয়ে এই ধরনের মৃত প্রায় ব্যবসায়ীরক উদ্যোগকে নতুন জীবন দান করেন এবং লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের ব্লু-পিন্ট বাতলে দেন। ব্যবসায়ীক অঙ্গনে ত্রানকর্তার ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়া এবং অনেক রুগ্ন শিল্প ও ব্যবসাকে শক্ত ভিত্তির উপর দাড় করিয়ে তিনি নিজেও সাফার হোল্ডিং লি: এর চিফ অপারেটিং অফিসারের পদ অলকৃত করেন (যেটি এডিসন ফাউন্ডেশনের একটি কোম্পানি)।

তিনি সর্বদা কর্পোরেট সেক্টরে নানা ধরণের ইতিবাচক সংস্কার আনার কথা চিন্তা করেন এবং তার সুদূরপ্রসারী নানান উদ্ভাবণী ও কল্যাণমূখী পদক্ষেপ তাকে ভিশনারী লিডার হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছে। ছাত্র জীবন থেকেই তিনি মুক্ত চিন্তা করতে পছন্দ করতেন, এবং কোন ধরাবাধা সীমায় তিনি আবদ্ধ থাকতে চাননি। সময়ের আবর্তে মনোয়ারুল ইসলাম রিবেল বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ও মার্কেটিং এর পাশাপাশি আইটি ও বিপিও এর উপর গভীর জ্ঞানে নিজেকে সমৃদ্ধ করে তোলেন এবং সমাজে একজন স্কলার হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হন। তিনি জাদরো আইটি লিমিটেড, অরেঞ্জ বিজনেস ডেভেলপমেন্ট এবং বিপিও, এজিডি আইটি সল্যুউশন বিডি লিমিডেট এর সিওও হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া তিনি সিলেট ওম্যান মেডিকেল কলেজ এন্ড হসপিটাল এবং টেকনো আউট সোর্স ইউকে লিমিটেড এর ব্রান্ড এন্ড মিডিয়া কনসালটেন্ড হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেন।

ছাত্রজীবনেই তিনি সাংবাদিকতা করেন দৈনিক সমকাল ও বাংলানিউজ২৪.কম এর রিপোর্টার হিসেবে। পরে প্রতিষ্টা করেন বেঙ্গলিনিউজ , ক্যারিয়ার সংবাদ এক্সিকিউটিভ এডিটরের দায়িত্বও পালন করেন।

এ ছাড়া এ দেশে অনলাইন সাংবাদিকদের প্রথম প্লাটফর্ম বাংলাদেশ অনলাইন জার্নালিষ্ট অ্যাসোসিয়েশন -বিওজেএ’র প্রথম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি।

উল্লেখ্য,  বেস্ট ওয়ে গ্রুপ এর মতো সুপরিচিত ও বৃহৎ প্রতিষ্ঠানের ডিরেক্টর ও সিওও এর দায়িত্বও পালন করেছেন রিবেল। বর্তমানে তিনি তার জ্ঞান ও অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে প্রযুক্তি , আইওটির প্রয়োগ করে এ্যাগ্রো ইন্ডাষ্ট্রির সম্প্রসারণ ও উন্নয়নের উপর বিশেষ ভূমিকা রাখছেন।

রিবেল মনোয়ার সমাজের বিকাশ ও উন্নয়নকল্পে বেশ কিছু প্রকল্প শুরু করেছেন যা সমাজে আর্থিক উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করছে। ছাত্র জীবনে কাজ করেছেন ঢাকা ইউনিভার্সিটি ক্যারিয়ার ক্লাব। সেই থেকে শুরু।

তিনি লায়ন্স ক্লাব অব ঢাকা ইনফিনিটির ক্লাব ডিরেক্টর। প্রতিষ্টাতা ঢাকা ইউনিভার্সিটি ফাইন্যান্সিয়াল লিডারশিপ ক্লাব।

পিবিএ/জেআই

আরও পড়ুন...