শার্শা নিজামপুর ইউনিয়নের উন্নয়নের কারিগর চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ

যশোরের শার্শা উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়নের উন্নয়নের কারিগর চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ। বর্তমান আবুল কালাম আজাদ উপজেলার ১১ টি ইউনিয়নের মধ্যে একজন জনপ্রিয় চেয়ারম্যান। সাধারণ মানুষের সেবা করাই তার মূল লক্ষ্য । পারিবারিক ভাবে যোগ্য উত্তরসূরী হিসেবে এলাকার জনগণ তাকে ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান হিসাবে নির্বাচিত করেছেন । পারিবারিক পদাংক অনুসরণ, নিজের প্রতিভা এবং মেধা দিয়ে নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক চোখ জুড়ানো সাজে সাজিয়েছেন ইউনিয়ন পরিষদের ভবন এবং এর আশপাশ। করে যাচ্ছেন জনসেবা। তার সেবায় খুশী ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ। নীতি-নৈতিকতা ও আদর্শে উজ্জীবীত মানুষ তিনি। এই ইউনিয়ন পরিষদের সার্বিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজই তার নেশা এবং পেশা। ইউনিয়নের মানুষের সাথে কথা বলে জানা গেছে, শার্শার সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিনের প্রতিনিধি হিসাবে সরকারী ও নিজের ব্যক্তিগত অর্থে চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ ইউনিয়নের অবকাঠামোগত সকল উন্নয়ন করেছেন। বিপদে আপদে অধিকাংশ সময় মানুষের পাশে থাকেন। সালিশ বিচার করে কারো নিকট থেকে অনৈতিক কোনো সুযোগ সুবিধা গ্রহন করার অভিযোগ নেই তার বিরুদ্ধে। ইউনিয়নের জন্য বরাদ্দকৃত অর্থ ও অন্যান্য মালামালের সুষ্ঠুব্যবহার নিশ্চিত করেছেন তিনি।নেশার আড্ডা, নেশার দ্রব্য, ক্রয়-বিক্রয় ইউনিয়নে সম্পূর্ন বন্ধ হয়ে গেছে তার ঐকান্তিক প্রচেস্টায়। হাইব্রিড আওয়ামী লীগদের দূরে সরিয়ে

আওয়ামীলীগ সহ সহযোগী সংগঠনের ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন বৃদ্ধি করেছেন। নিজামপুর ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন গোড়পাড়া বাজার টিকে করেছেন আধুনিক একটি মিনি শহর। তিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর ইউনিয়নের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ব্যাপক উন্ননয় দেখা গেছে। ইউনিয়নের নিজামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নতুন ভবণ নির্মাণ, গোড়পাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের চর্তুথ তলা ভবন নির্মাণ, কেপি / কেরালখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ভবণ নির্মাণসহ আরো কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবণ নির্মাণ করেন। চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ জানালেন,এই সব ভালকাজে ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি কুচক্রী মহল তার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এসব কারনেই হয়তো আমি অনেকের শত্রু। তারপরও থেমে যাবো না, যতক্ষন বেঁচে আছি। আমি নিজামপুর ইউনিয়নের জনগনের পাশে আছি ও ভবিষ্যতেও থাকব, আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি নিজামপুর ইউনিয়নবাসী সব সময় আমার সাথে আছে। আমার ইউনিয়নে কোনো অন্যায় কাজ, চুরি, ডাকাতি, নেশা ক্রয় বিক্রয় আমি হতে দেবো না। মহান আল্লাহ পাক ছাড়া আর কাউকে আমি ভয় পাই না। এদিকে মানুষের দোয়া এবং ভালোবাসায় তিনি এগিয়ে যাবেন, এমনটিই জানিয়েছেন এলাকার শান্তি প্রিয় মানুষ।

আরও পড়ুন...