সাইকেলে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে যাত্রা


পিবিএ,খুলনা: ‘সাইকেল চালান, শব্দ ও পরিবেশ দূষণ কমান, গাছ লাগান, মাদককে না বলুন’ এমন স্লোগানের প্লাকার্ড ঝুলিয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় (খুবি) থেকে কলকাতার রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত সাইকেল প্রচারণা অভিযান শুরু করেছেন শেখ শরিফুল ইসলাম হিরন ও গাজী বাহারুল ইসলাম।

সোমবার দুপুরে অ্যাপেক্স ক্লাবস অব বাংলাদেশের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় সাইকেল চালিয়ে দুই দেশের মধ্যে জনসচেতনতামূলক বার্তা পৌঁছে দিতে তাদের এ যাত্রা। অ্যাপেক্স ক্লাব অব খুলনার প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট মুজিবর রহমানের সভাপতিত্বে সেক্রেটারি এ্যাডভোকেট মঈনুল ইসলাম জীবনের পরিচালনায় যাত্রা শুরুর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অ্যাপেক্স ক্লাবস অব বাংলাদেশের জেলা গভর্নর অ্যাডভোকেট মনিরুল ইসলাম পান্না।

হিরণ পিবিএ’কে জানান, দুই দেশের মধ্যে জনসচেতনতামূলক কর্মসূচির অংশ হিসেবে সাইকেল চালিয়ে খুলনা থেকে রওয়ানা হয়ে সোমবার রাতে অবস্থান করবেন অ্যাপেক্স ক্লাব অব যশোরে। মঙ্গলবার সকালে যশোর থেকে যাত্রা করে বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারতের কলকাতায় রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌঁছাবেন। সেখানে অ্যাপেক্স ক্লাবস অব ভারতের অ্যাপেক্সিয়ানরা তাদের অভ্যর্থনা জানাবেন বলে নিশ্চিত করেন তিনি।

তিনি বলেন, আমরা ‘ঠোঁট কাটা তালু কাটা’ বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে ২০১৪ সালে বাংলাদেশের ৬৪ জেলা বাইসাইকেলে ভ্রমণ করেছিলাম। আমাদের এ উদ্যোগ তখন সারাদেশে সাড়া জাগিয়েছিল যার সুফল অনেকেই পেয়েছেন এবং পাচ্ছেন। ২০১৮ সালে অ্যাপেক্স বাংলাদেশের হয়ে খুলনার রূপসা সেতু থেকে ভারতের হাওড়া ব্রিজ পর্যন্ত প্রচারণা চালিয়েছিলাম।

হিরণ আরও বলেন, বর্তমানে শব্দদূষণ একটি মারাত্মক পরিবেশগত সমস্যা হিসেবে পরিগণিত হচ্ছে। বিশেষ করে শব্দদূষণের কারণে নতুন প্রজন্ম মানসিক ও শারীরিকভাবে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। শব্দদূষণের কারণে শ্রবণশক্তি হ্রাস, বধিরতা, হৃদরোগ, খিটখিটে মেজাজ, শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা বিঘ্নিত হওয়া, ঘুমের ব্যাঘাতসহ নানা রকম সমস্যা দেখা দিচ্ছে। এ বিষয়ে আইনের যথাযথ প্রয়োগ করতে হবে। এর আগে ২০১৭ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি শেখ শরিফুল ইসলাম হিরন সাইকেল চালিয়ে বরযাত্রী নিয়ে বিয়ে করেন।

পিবিএ/এসএইচআর/এমএসএম

আরও পড়ুন...

ঘরে বসেই নিজের বিকাশ একাউন্ট খুলুন