সাত দিনের মধ্যে ৪ দফা দাবি না মানলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

পিবিএ,ঢাবি: ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরের ওপর হামলাকারীদের বিচার ও প্রক্টর অধ্যাপক ড. একেএম গোলাম রব্বানীর অপসরণসহ চার দফা দাবি মানতে সাত দিনের সময় বেঁধে দিয়েছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। নির্ধারিত এই সময়ের মধ্যে দাবি না মানলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তারা।

বৃহস্পতিবার সকালে ৪ দফা দাবি পূরণে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি প্রদান শেষে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে এই হুঁশিয়ারি দেন ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন।

১২টি ছাত্র সংগঠনের ‘সন্ত্রাসবিরোধী ছাত্র ঐক্য’র ব্যানারে এই স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। তবে সেসময় উপাচার্য অফিসে না থাকায় সহকারী প্রক্টর অধ্যাপক আবদুর রহিম ও সীমা ইসলামের নিকট তা হস্তান্তর করা হয়।

চার দাবির মধ্যে রয়েছে- নুরুল হক নুরসহ সকল শিক্ষার্থীর ওপর হামলাকারীদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কার ও আইনানুগ বিচার, শির্ক্ষাথীদের নিরাপত্তা প্রদানে ব্যর্থতার দায়ে প্রক্টরকে অপসারণ, ডাকসুতে হামলায় আহতদের চিকিৎসার ব্যয়ভার প্রশাসনকে বহন, হামলায় আহতদের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং ক্যাম্পাসে গণতান্ত্রিক পরিবেশ ও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে হলে হলে দখলদারিত্ব, গেস্টরুম-গণরুম নির্যাতন বন্ধ করা।

স্মারকলিপিতে বলা হয়- ‘আমরা অত্যন্ত উদ্বেগ ও ক্ষোভের সঙ্গে জানাচ্ছি যে, ডাকসু ভবনে নৃশংস হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরসহ আহত শিক্ষার্থীদের নামে মামলা করা হয়েছে, যার বিরুদ্ধেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কোনো বক্তব্য আমরা পাইনি। উপরন্ত আহতদেরকেই দোষারোপ করার চেষ্টা করা হয়েছে যা অত্যন্ত নিন্দনীয় ও অনাকাক্ষিত। প্রতিটি ঘটনায় প্রক্টর শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেন। তিনি ছাত্রদের নিরাপত্তা দিতে চূড়ান্তভাবে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন। এরকম পক্ষপাতদুষ্টু ব্যক্তি কোনোভাবেই প্রক্টরের পদে বহাল থাকতে পারেন না।’

পিবিএ/এমএসএম

আরও পড়ুন...