সীমান্ত বন্ধ থাকায় বিলুপ্তির পথে গাজার কুটির শিল্প

পিবিএ ডেস্ক: ফিলিস্তানের গাজায় ঐতিহ্যবাহী মৃৎ শিল্প থেকে শুরু করে কার্পেট শিল্প সবই বিলুপ্তির পথে। বছরের পর বছর সীমান্ত বন্ধ থাকায় চরম অর্থনৈতিক সংকটে পড়েছে গাজার ক্ষুদ্র কুটির শিল্প।

এক সময় খালাফের তৈরি বেতের চেয়ার, সোফা গাজা ছাড়িয়ে ইসরায়েল, যুক্তরাষ্ট্র ও পারস্য উপসাগরীয় দেশগুলোতে রপ্তানি হত।
উন্নত মান ও আকর্ষণীয় হওয়ায় এর কদরও ছিল বেশ। শুধু বেতের তৈরি পণ্যই না, গাজার ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প, কাঠ, কাঁচ এবং কার্পেট শিল্প প্রায় সবকিছুই হারায় জৌলুস।

রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা, বিনিয়োগের অভাবে এসব শিল্পের সাথে জড়িত শ্রমিকরা ছুটছেন নতুন পেশায়। বংশ পরম্পরায় কয়েকজন কুটির শিল্প ব্যবসায়ী কাজ ধরে রাখতে চাইলেও বেচাবিক্রি না থাকায় ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত তারা।

গাজার ক্ষুদ্র কুটির শিল্প নিয়ে ব্যবসায়ীরা বলেন, রপ্তানি ও আমদানিতে বাধা হওয়ায় নতুন পণ্য তৈরিতে সমস্যা হচ্ছে। শিল্পের বিকাশ না হওয়ায় হচ্ছে নতুন পেশায় চলে যেতে হচ্ছে। দেশটিতে দিন দিন বেকারত্বের হার বাড়ায় স্থানীয় ক্রেতা নেই।

ফিলিস্তিন চেম্বার অফ কমার্সের সদস্য মাহের আল- তাব্বা বলেন, সংকটের সময় কারখানাগুলো চালু রাখার জন্য আবশ্যক হয়ে পড়েছে। এছাড়াও ব্যবসায়ীরা যাতে তাদের পণ্য অন্তত পশ্চিম তীরের বাজারগুলিতে বিক্রির অনুমতি পায় সেদিকে জোর দিতে হবে।

দীর্ঘদিন ধরে সীমান্তে নিষেধাজ্ঞার কারণে রপ্তানি বন্ধ হওয়ার পাশাপাশি, দেশেও চাহিদা হারাচ্ছে এসব পণ্য।

পিবিএ/এমএসএম

আরও পড়ুন...

ঘরে বসেই নিজের বিকাশ একাউন্ট খুলুন