১ হাজার শিশুর মুখে হাসি ফোটালো !! করোনা যুদ্ধে আমরা”

পিবিএ,জয়পুরহাট: করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে এবং অসহায় মানুষের পাশে থেকে তাদের সেবা করার জন্য জয়পুরহাটে ২২টি সেচ্ছাসেবী সংগঠন একত্রিত হয়ে “করোনা যুদ্ধে আমরা” নামে নতুন সংগঠনের আত্মপ্রকাশ করে। করোনার লম্বা পথ চলা একা কোন সংগঠনের পক্ষে সম্ভব নয় তাই !! দশের লাঠি একের বোঝা ’’ এই কথাটি মাথায় রেখেই এই দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতেই তারা একত্রিত হয়।

সংগঠনটি শতাধিক সেচ্ছাসেবী নিয়ে গত ২১ মার্চ থেকে নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছে। প্রথমে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি, সাবান, মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং ব্লিচিং পাউডার বিতরন দিয়ে শুরু করে। সংগঠনটির কার্যক্রম পরবর্তীতে অসহায়দের খাদ্য সহায়তা দেয়া শুরু করে যা আজ অবধি সাড়ে পাঁচ হাজার পরিবার কে সহায়তা করেছে এখনো তা চলমান।

পবিত্র রমজানের শুরু থেকে প্রতিদিন দুইশ ভ্রাম্যমান মানুষ ও করোনা সন্দেহে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষদের ইফতারি ও সেহরী প্রদান করে আসছে। এছাড়াও মানুষজনকে ঘরে রাখতে ও সুলভ মূল্যে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিতে ভ্রাম্যমান বাজার,অনলাইন কোরআন শিক্ষা, লাইভ টক শো চলমান রেখেছে।

এরই ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি স্কুলের শিক্ষার্থী, শ্রমিক সংগঠনের সদস্যদের সন্তান, অসহায় ও ছিন্নমূল হাজার শিশুদের হাতে পবিত্র ঈদের পোশাক দিয়ে হাসি ফোটাল সংগঠনটি। রোববার দুপুরে রামদেও বাজলা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এই ঈদ উপহার তুলে দেওয়া হয় শিশুদের।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সালাম কবির। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন শ্রমিক উপদেষ্টা বাবু নন্দলাল পার্শি, করোনা যুদ্ধে আমরা এর প্রধান সমন্বয়ক তিতাস মোস্তফা, সমন্বয়কারী জয়পুরহাট টেলিভিশন রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি আবদুল আলীম মন্ডল, সংগঠনের সদস্য তপু মোস্তফা, তমাল, আল আমিন হিরা, সজীব, তরঙ্গ চৌধুরী, মোক্তাদির, সোহাগ সহ অনেকেই।

এছাড়াও আক্কেলপুরের গোপীনাথপুরে আইসোলেশনে থাকা রোগীদের ও নতুন জামা কিনে দেওয়া ও ঈদে করোনা রোগীদের জন্য সেমাই খাওয়ানোর ব্যবস্থাও করেছে সংগঠনটি। সমন্বয়কারী তিতাস মোস্তফা ও আবদুল আলীম জানান, করোনা পরিস্থিতিতে সরকারের পাশাপাশি তারা সাধারণ মানুষের পাশে থাকতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। যতদিন করোনা থাকবে ততদিন তারা এভাবেই মানুষের পাশে থাকবে বলে জানান।
পিবিএ/ওবায়দুল ইসলাম রবি/এএম

আরও পড়ুন...