২০২০ সালের মধ্যে পৃথিবীকে রক্ষা করতে হবে

পিবিএ:  পৃথিবীকে মানুষের বাসযোগ্য রাখতে কার্বন নিঃসরণ কমাতেই হেবে। আগে বলা হয়েছিলো ১২ বছর সময় আছে এটি করার জন্য। কিন্তু বিজ্ঞানীরা এখন বলছেন, আগামী দেড় বছর পৃথিবীকে রক্ষা করার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময়। যা কিছু করার এই সময়ের মধ্যে করতে হবে।

জলবায়ুর পরিবর্তন বিষয়ে জাতিসংঘের বিজ্ঞানীদের একটি টিম ইন্টার গভর্নমেন্টাল প্যানেল অন ক্লাইমেট চেঞ্জ (আইপিসিসি) গত বছর বলেছিল, যদি এই শতকের মধ্যে আমরা তাপমাত্রা বৃদ্ধি ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ধরে রাখতে চাই, তাহলে ২০৩০ সালের মধ্যে কার্বন নির্গমন ৪৫ শতাংশ কমাতে হবে।
কিন্তু এখন অনেক বিশেষজ্ঞ বলছেন, অতটা সময় আর হাতে নেই। কার্বন নির্গমন কমাতে একেবারে সুস্পষ্ট রাজনৈতিক পদক্ষেপ নিতে হবে ২০২০ সালের আগেই। এই যে পৃথিবীকে রক্ষার জন্য ২০২০ সালকে শেষ সময়সীমা বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে, সেটা বিশ্বের কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় জলবায়ু বিজ্ঞানী প্রথম ঘোষণা করেন ২০১৭ সালে। খবর বিবিসি বাংলার।
জলবায়ু বিজ্ঞানী এবং পটসড্যাম ক্লাইমেট ইনস্টিটিউটের হ্যান্স জোয়াকিম শেলনহুবার বলেন, জলবায়ু বিষয়ক অংকটা এখন নির্মমভাবেই স্পষ্ট। আগামী কয়েক বছরের মধ্যে হয়ত পৃথিবীর ক্ষত সারিয়ে তোলা সম্ভব নয়। কিন্তু অবহেলার মাধ্যমে ২০২০ সালের মধ্যে আমরা পৃথিবীর অপূরণীয় ক্ষতি করতে পারি।
২০২০ সালই যে পৃথিবীকে জলবায়ুর পরিবর্তন থেকে বাঁচানোর শেষ সুযোগ, সেটা দিনে দিনে আরো স্পষ্ট হচ্ছে। ব্রিটিশ যুবরাজ চার্লসও সমপ্রতি কমনওয়েলথ পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এক বৈঠকে একই কথা বলেছেন। তিনি বলেন, আমার দৃঢ় মত হচ্ছে, আগামী ১৮ মাসেই নির্ধারিত হবে আমরা জলবায়ুর পরিবর্তনকে আমাদের টিকে থাকার মাত্রায় আটকে রাখতে পারব কিনা। আমাদের টিকে থাকার জন্য প্রকৃতিতে ভারসাম্য ফিরিয়ে আনতে পারব কিনা।
আগামী ১৮ মাস কেন এত গুরুত্বপূর্ণ : কারণ, এখন থেকে সামনের বছরের শেষ পর্যন্ত জাতিসংঘের অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক আছে। ২০১৫ সালে প্যারিস জলবায়ু চুক্তি হয়েছিল। তারপর থেকে তর্ক-বিতর্ক অব্যাহত রয়েছে এই চুক্তির একটি রুলবুক তৈরির জন্য। কিন্তু চুক্তির শর্ত অনুযায়ী এতে স্বাক্ষরকারী দেশগুলো এমন অঙ্গীকারও করেছিল, তারা ২০২০ সালের মধ্যে কার্বন নির্গমন কমাতে আরো ব্যবস্থা নেবে।
গত বছর আইপিসিসির রিপোর্টে একটি গুরুত্বপূর্ণ টার্গেট ঠিক করা হয়েছিল, যা সেভাবে আলোচিত হয়নি। সেটি হচ্ছে, কার্বন নির্গমন বাড়ার হার ২০২০ সালেই থামিয়ে দিতে হবে, যাতে তাপমাত্রা এই শতকে এক দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি আর না বাড়ে।
কিন্তু এখন পর্যন্ত যে পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে, তা কোনোভাবেই তাপমাত্রা বৃদ্ধিকে নিরাপদ সীমার মধ্যে ধরে রাখতে পারবে না। চলতি শতকের শেষ নাগাদ তাপমাত্রা হয়ত তিন ডিগ্রি পর্যন্ত বেড়ে যেতে পারে।
বিশ্বের প্রায় সব দেশেই দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনাগুলো সাধারণত পাঁচ বা দশ বছর মেয়াদী। কাজেই ২০৩০ সাল নাগাদ যদি কার্বন নির্গমন ৪৫ শতাংশ কমাতে হয়, সেই পরিকল্পনা টেবিলে হাজির করতে হবে ২০২০ সাল শেষ হওয়ার আগেই।
কী পদক্ষেপ নিতে হবে : প্রথম যে বড় বাধাটি অতিক্রম করতে হবে সেটি হচ্ছে জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তনিও গুতেরেসের ডাকা বিশেষ জলবায়ু সম্মেলন, যেটি হবে এ বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর। গুতেরেস খোলাখুলিই বলেছেন, কোনো দেশ যদি তাদের কার্বন নির্গমনের মাত্রা উল্লেখযোগ্য হারে কমানোর প্রস্তাব করতে পারে, তবেই যেন তারা এই সম্মেলনে আসে।
এরপর এ বছরের শেষ নাগাদ চিলির সান্টিয়াগোতে ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন অন ক্লাইমেট চেঞ্জ বলে একটি সম্মেলন হবে। সেখানে এই প্রক্রিয়া আরো সামনে এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করা হবে। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাটি ঘটবে এর পরের সম্মেলনটিতে। যেটি ২০২০ সালের শেষ নাগাদ ব্রিটেনে হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।
ব্রিটেন আশা করছে, ব্রেক্সিটের পর তারা সেখানে এই কাজের জন্য যে রাজনৈতিক সদিচ্ছা দরকার সেটা দেখাতে পারবে। ব্রিটেনের পরিবেশমন্ত্রী মাইকেল গোভ বলেন, ব্রিটেন যদি এই সম্মেলন আয়োজনে সফল হয়, তাহলে তাপমাত্রা বৃদ্ধি যেন ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যেই আটকে রাখা যায়, সে-রকম একটা পদক্ষেপ সেই সম্মেলনে সব দেশকে মিলে নিতে হবে।
আশাবাদী হওয়ার কারণ কতটা : জলবায়ুর পরিবর্তন বিষয়ে মানুষের মধ্যে নতুন করে আগ্রহ দেখা যাচ্ছে। কিভাবে এর সমাধানে নিজেরা কিছু করা যায়, সেটা নিয়ে ভাবছে অনেকে। একই সঙ্গে ঘটা বেশ কিছু ঘটনা হয়ত এর পেছনে কাজ করছে। প্রথমত, ইউরোপ জুড়ে তাপপ্রবাহ যে বাড়ছে তার অনেক প্রমাণ এখন পাওয়া যাচ্ছে। সুইডেনের স্কুলছাত্রী গ্রেটা থানবার্গের আন্দোলন অনেককে উজ্জীবিত করেছে। আর এক্সটিংশন রেবেলিয়ন নামের বিপ্লবী পরিবেশবাদী গোষ্ঠীর আন্দোলনও জনমতকে প্রভাবিত করেছে।
মানুষ এখন এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানাচ্ছে। অনেক দেশেই রাজনীতিকরাও এখন এটা নিয়ে সচেতন হয়ে উঠেছেন। ব্রিটেন ২০৫০ সালের মধ্যে কার্বন নির্গমন শূন্যে নামিয়ে আনার প্রতিজ্ঞা করেছে।
আছে আশংকার কারণও : ব্রিটেনে যখন সামনের বছর এই জলবায়ু সম্মেলন হবে, ঠিক একই সময়ে যুক্তরাষ্ট্র হয়ত পাকাপাকিভাবে প্যারিস চুক্তি ছেড়ে বেরিয়ে যাবে। তবে ডোনাল্ড ট্রাম্প যদি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হেরে যান এবং ডেমোক্রেটিক প্রার্থী বিজয়ী হন, তাহলে উল্টোটাও হতে পারে। দুটির যেটিই ঘটুক, এর প্রভাব পড়বে জলবায়ুর পরিবর্তন ঠেকানোর সংগ্রামে।
বর্তমানে বেশ কয়েকটি দেশ জোট বেঁধে চেষ্টা চালাচ্ছে জলবায়ুর পরিবর্তন ঠেকানোর কাজে বাগড়া দিতে। এর মধ্যে আছে যুক্তরাষ্ট্র, সৌদি আরব, কুয়েত এবং রাশিয়া। জাতিসংঘে আইপিসিসির বিশেষ প্রতিবেদন নিয়ে আলোচনা তারা আটকে দেয়। কয়েকদিন আগে জার্মানির বনে সৌদি আরব আবারও এরকম একটি আলোচনায় আপত্তি জানায়।
ইউনিভার্সিটি অব শেফিল্ডের অধ্যাপক মাইকেল জ্যাকবস সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী গর্ডন ব্রাউনের জলবায়ু উপদেষ্টা ছিলেন। তিনি বলেন, যদি ব্রিটেনের জলবায়ু সম্মেলনের সুযোগ যদি কাজে লাগানো না যায়, তাহলে তাপমাত্রা এক দশমিক ৫ ডিগ্রির মধ্যে আটকে রাখার লক্ষ্য অর্জনের সুযোগ থাকবে না।

পিবিএ/ইকে


আরও পড়ুন...

ঘরে বসেই নিজের বিকাশ একাউন্ট খুলুন